June 20, 2024

Bangla

Live News & Updates From West Bengal পশ্চিমবঙ্গ থেকে লাইভ খবর ও আপডেট

  • এক ধাক্কায় ২ হাজার শূন্যপদে নিয়োগ করতে চলেছে রাজ্য সরকার, পুজোর আগেই জয়েনিং

    বাংলা হান্ট ডেস্কঃ ২০২২ সাল থেকে একাধিক দুর্নীতির দায়ে জর্জরিত রাজ্য। নিয়োগ দুর্নীতি, রেশন দুর্নীতি, গরু পাচার সহ একাধিক কেলেঙ্কারি ইস্যুতে চলছে মামলা। ওদিকে গত মাসের ওবিসি নিয়ে হাইকোর্টের রায়ের জেরে বন্ধ রয়েছে একাধিক নিয়োগ। তবে এই আবহেই এবার নিয়োগ (West Bengal Recruitment) নিয়ে সুখবর দিল রাজ্য সরকার (Government Of West Bengal)। রাজ্য বাড়ছে মেডিক্যাল কলেজ, সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল। যেগুলিতে বহু শূন্যপদ রয়েছে। রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে সূত্রে খবর শীঘ্রই স্বাস্থ্যক্ষেত্রে নিয়োগ করতে চলেছে রাজ্য। আগামী এক মাসের মধ্যে ওইসব শূন্য পদে নিয়োগের জন্য বিজ্ঞাপন বের হবে বলেও জানা যাচ্ছে। শিক্ষক চিকিৎসক, মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট, ফার্মাসিস্ট সহ মোট ২০টি পদে নিয়োগে উদ্যোগী রাজ্য। যার ফলে প্রায় ২ হাজার কর্মী নিয়োগ হবে। লোকসভা ভোটের পর্ব মিটতেই স্বাস্থ্যক্ষেত্রে নিয়োগ নিয়ে বড়সড় সুখবর। জানা গিয়েছে, ভোটের কারণে নির্বাচন আচরণবিধি লাগু থাকায় এতদিন ১৭ পদে নিয়োগ আটকে ছিল। এবার ২ হাজার শূন্য পদের মধ্যে ১৬০০ নতুন করে এবং বাকি ভোটের জন্য নিয়োগ আটকে থাকা আরও ৪০০ জনকেও নিয়োগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্বাস্থ্য দপ্তর। কোন পদে কত নিয়োগ? সহকারী আধ্যাপক হিসেবে মোট ৫৫০ জন শিক্ষক চিকিৎসক নিয়োগ করা হবে। ফার্মাসিস্ট পদে ৩০০ জন, মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট পদে ৭০০ জন পাশাপাশি ল্যাবরেটরি অ্যাসিসট্যান্ট, ফিজিওথেরাপিস্ট ও জলপাইগুড়ির ইন্সটিটিউট অব ফার্মাসির অ্যাপক পদেও নিয়োগ করবে রাজ্য। আরও পড়ুন: দক্ষিণবঙ্গে আজও হবে না ভারী বৃষ্টি, হালকা ভিজতে পারে এই ৭ জেলা: আবহাওয়ার খবর ওদিকে ডায়ালিসিস, পারফিউসনিস্ট, আরটি, ইসিজি, ইএমজি, ক্যাথল্যাব, ওটি, আরডি এই সব ধরনের মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট নিয়োগ করা হবে। আগামী একমাসের মধ্যে এনিয়ে বিজ্ঞপ্তি বেরিয়ে যাবে বলে জানা গিয়েছে। পুজোর মধ্যেই নিয়োগ সম্পন্ন হয়ে যাবে।

  • দক্ষিণবঙ্গে আজও হবে না ভারী বৃষ্টি, হালকা ভিজতে পারে এই ৭ জেলা: আবহাওয়ার খবর

    বাংলা হান্ট ডেস্ক: রোজই মেঘলা আকাশ, বৃষ্টি নামবে নামবে ভাব। তবে কোথায় কী! আকাশে মেঘ জমলেও বৃষ্টির (Rainfall) দেখা নেই। ভ্যাপসা গরম আর অস্বস্তিতে জেরবার দক্ষিণবঙ্গের (South Bengal) মানুষ। আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে চলতি সপ্তাহেই দক্ষিণবঙ্গে পা রাখছে বর্ষা। মঙ্গলবার থেকেই অবশ্য প্রাক্ বর্ষার বৃষ্টি শুরু হয়েছে কয়েকটি জেলায়। গত শেষে উত্তরবঙ্গে প্রবেশ করেছে বর্ষা। এখন ইসলামপুর পর্যন্ত এসে আটকে রয়েছে। তবে এবার সুখবর দিয়ে IMD. জানিয়েছে, শুক্রবারই দক্ষিণবঙ্গে ঢুকে যাচ্ছে বর্ষা। তার আগে আজ বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে একাধিক জেলায়। যদিও বৃহস্পতিবারও বৃষ্টির হবে না কলকাতায়। তার জন্য অপেক্ষা করতে হবে আরও কিছু দিন। আজ হালকা বৃষ্টি হতে পারে উত্তর ২৪ পরগনা, দক্ষিণ ২৪ পরগনা, পূর্ব মেদিনীপুর, পশ্চিম মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম, পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, পূর্ব বর্ধমান, পশ্চিম বর্ধমান, বীরভূম, মুর্শিদাবাদ এবং নদিয়া জেলায়। এখনই ভারী বৃষ্টি হবে না দক্ষিণবঙ্গে। ২৩ জুনের পর দক্ষিণের জেলাগুলিতে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা। বৃহস্পতি ও শুক্রবার অপেক্ষাকৃত বেশি বৃষ্টি হতে পারে উপকূলের দুই জেলা পূর্ব মেদিনীপুর এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনার কোনও কোনও অংশে। তালিকায় থাকবে বাঁকুড়া, বীরভূম, পশ্চিম বর্ধমান এবং পুরুলিয়া জেলাও। দক্ষিণবঙ্গে ভারী বৃষ্টি না হলেও উত্তরবঙ্গে জারি থাকবে বৃষ্টিপাত। আরও পড়ুন: আজকের রাশিফল ২০ জুন, প্রতিটি কাজে বাজিমাত এই চার রাশির টানা ভারী বৃষ্টির জেরে বিপর্যস্ত উত্তরের একাধিক জেলা। আজ বৃহস্পতিবারও জলপাইগুড়ি, আলিপুরদুয়ার ও কোচবিহার জেলায় প্রবল বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। দার্জিলিং, ও কালিম্পং-এ ভারী থেকে বৃষ্টি হতে পারে। সতর্কতা জারি করেছে আবহাওয়া দপ্তর। ২৫ তারিখ পর্যন্ত উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতে বৃষ্টি চলবে বলে পূর্বাভাস।

  • বাংলা জুড়ে ছেলেধরা আতঙ্ক, বারাসতে পিটিয়ে খুন! অপপ্রচার নিয়ে সতর্কবাণী পুলিশের

    বাংলা হান্ট ডেস্ক: বারাসাত (Barasat) জুড়ে ছড়াচ্ছে ছেলে ধরার (Child Thefting) গুজব (Rumour)। ছেলে ধরা সন্দেহে ইতিমধ্যে গণপিটুনি দিয়ে দিয়েছেন আমজনতা। পুলিশের কাছে অভিযোগ যেতে ইতিমধ্যেই এই গণপিটুনির ঘটনায় মোট ১৭ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। জানা যাচ্ছে, ধৃতদের আগামীকাল অর্থাৎ বৃহস্পতিবার আদালতের তোলা হবে। জানা যাচ্ছে এই ঘটনায় গ্রেফতারির সংখ্যা আরো বাড়তে পারে। প্রসঙ্গত বিগত কয়েকদিন ধরেই বারাসাত সংলগ্ন এলাকায় গুজব রটেছে ছেলে ধরার।  ঘটনার সূত্রপাত হয় কাজী পাড়া এলাকায় এক শিশুর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে। যা নিয়ে সমাজমাধ্যমেও শুরু হয় ব্যাপক চর্চা। চারপাশের গুজব আর সমাজ মাধ্যমের অপপ্রচারের জেরে ইতিমধ্যেই  বারাসাত সংলগ্ন এলাকায় দুটি পৃথক ঘটনায় গণপিটুনির মুখে পড়েছেন এক ব্যক্তি এবং এক মহিলা সহ তার সঙ্গী। যদিও পুলিশ আগেই জানিয়েছিল, ওই বালকের মৃত্যু সঙ্গে শিশুচুরি বা ছেলেধরার কোনও সম্পর্ক নেই। তবুও থামেনি গুজব। এই  গুজবে কান দিয়েই  বুধবার বারাসতের দুই এলাকায় দু’টি পৃথক ঘটনা ঘটে। যার মধ্যে বারাসাতের মোল্লাপাড়ায় এক ব্যক্তিকে শুধুমাত্র সন্দেহের বশেই ছেলেধরা ভেবে গণপিটুনি দিতে শুরু আমজনতা। আরও পড়ুন: উত্তরবঙ্গ ঘুরতে যাচ্ছেন? এখনই দেখে নিন শিয়ালদহ-হাওড়া থেকে NJP যাওয়ার একাধিক ট্রেনের নতুন টাইম-টেবিল এছাড়াও মডার্ন স্কুলের সামনে এক মহিলা এবং তাঁর সঙ্গীকেও একই ভাবে ছেলেধরা ভেবে ব্যাপক মারধর করা হয়। অভিযোগ, সামনে পুলিশ থাকা সত্ত্বেও  ওই দু’জনকে টেনে হিঁচড়ে মারধরও  করে জনতা। এই গণপিটুনীর ঘটনাকে কেন্দ্র করে কার্যত রণক্ষেত্র হয়ে ওঠে গোটা এলাকা। পরিস্থিতি  সামাল দিতে লাঠিচার্জ পর্যন্ত করে  পুলিশ। জানা যাচ্ছে ,আক্রান্ত তিন জনই এই মুহূর্তে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। প্রসঙ্গত ছেলেধরার গুজব রটানো বন্ধ করতেই বারাসতের পুলিশ সুপার বুধবার সাংবাদিক বৈঠক করে জানিয়েছেন, বারাসতে নাকি আদৌ কোনও শিশুচুরির ঘটনা  ঘটেনি। তবে যে বালকের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে এই গুজব রটেছিল তাকে খুন করা হয়েছে। সেই খুনের অভিযোগে ইতিমধ্যেই এক জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

  • উত্তরবঙ্গ ঘুরতে যাচ্ছেন? এখনই দেখে নিন শিয়ালদহ-হাওড়া থেকে NJP যাওয়ার একাধিক ট্রেনের নতুন টাইম-টেবিল

    বাংলা হান্ট ডেস্ক: শিয়ালদাগামী কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসে দুর্ঘটনার (Kanchanjunga Train Accident) জেরে কার্যত বিপর্যস্ত ট্রেন পরিবহন ব্যবস্থা। এই মুহূর্তে স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে লেটে চলছে শিয়ালদহ/হাওড়া-গুয়াহাটি লাইনের একাধিক ট্রেন। লিঙ্ক ট্রেনগুলি দেরিতে আসায় ট্রেন ছাড়তেও দেরি হচ্ছে। এই ঘুরতে যাওয়ার সিজনেই বুধবারেও শিয়ালদহ ও হাওড়া থেকে উত্তরবঙ্গগামী বেশ কিছু ট্রেনের সময় পরিবর্তন করা হয়েছে। ডাউন লিঙ্ক ট্রেন দেরিতে আসার কারণে যে সমস্ত ট্রেনের সময় পরিবর্তন (Rescheduling Time) হয়েছে সেগুলি হল। ১৩১৪৭ শিয়ালদহ-বামনহাট উত্তরবঙ্গ এক্সপ্রেস, ১৯ জুন সন্ধ্যা ৭টা ৪০-এর বদলে ২০ জুন রাত ২ টোয় শিয়ালদহ থেকে ছেড়ে যাবে। ১৩১৪৯ শিয়ালদহ-আলিপুরদুয়ার কাঞ্চনকন্যা এক্সপ্রেস ১৯ জুন রাত ৮টা ৩৫ নয় ২০ জুন রাত ১২টা ১৫ মিনিটে শিয়ালদহ থেকে রওনা দেবে। এছাড়াও ১২৩৭৭ শিয়ালদহ-নিউ আলিপুরদুয়ার পদাতিক এক্সপ্রেস ১৯ জুন রাত ১১টা ২০-এর পরিবর্তে ২০ জুন রাত ৩টে ৩০ মিনিটে শিয়ালদহ থেকে ছাড়বে। আরও পড়ুন: নতুন বছরেরই ভেঙে পড়বে রাজ্যের পরিবহন ব্যবস্থা! হাইকোর্টের নির্দেশে বন্ধের মুখে হাজার-হাজার বেসরকারি বাস একইভাবে ১২৩৪৫ হাওড়া-গুয়াহাটি সরাইঘাট এক্সপ্রেস ১৯ জুন বিকেল ৪টে ৫-এর পরিবর্তে ২০ জুন ভোর ৫টায় হাওড়া থেকে ছাড়বে। এছাড়া  ১২০৪১ হাওড়া-নিউ জলপাইগুড়ি শতাব্দী এক্সপ্রেস ১৯ জুন দুপুর ২টো ২৫-এর পরিবর্তে ছাড়তে বিকেল ৫টা ১০-এ হাওড়া থেকে ছাড়বে। ১৩১৪১ শিয়ালদহ-নিউ আলিপুরদুয়ার তিস্তা তোর্সা এক্সপ্রেস ১৯ জুন দুপুর ৩টের পরিবর্তে সন্ধ্যা ৭টা ৪০ মিনিটে শিয়ালদহ থেকে ছাড়বে। যাত্রীদের অসুবিধার জন্য আগাম দুঃখপ্রকাশ করেছে রেল। প্রসঙ্গত সোমবার দার্জিলিং জেলার রাঙাপানি স্টেশনের কাছে এসেই দুর্ঘটনার মুখে পড়ে কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেস। কিন্তু সিগন্যাল না পেয়ে পেপারলাইনে   চলছিল ট্রেনটি। সেই সময় একটি মালগাড়ি এসে সজোরে পিছন থেকে ধাক্কা মারে কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসকে। এই দিনের এই ভয়াবহ দুর্ঘটনায়  মৃত্যু হয় কমপক্ষে ১০ জনের।

  • নতুন বছরেরই ভেঙে পড়বে রাজ্যের পরিবহন ব্যবস্থা! হাইকোর্টের নির্দেশে বন্ধের মুখে হাজার-হাজার বেসরকারি বাস

    বাংলা হান্ট ডেস্ক: কলকাতা হাইকোর্টের (Kolkata High Court) নির্দেশে এবার বেকায়দায় বেসরকারি বাসমালিকরা। জানা যাচ্ছে,নতুন বছরেই বাতিল হতে পারে কয়েক হাজার বেসরকারি বাস (Private Bus)। তাই ২০২৪ সালের জুন মাসেই সিঁদুরে মেঘ দেখছেন বেসরকারি বাসমালিকরা। তাঁদের মতে, কলকাতা হাই কোর্টের এই নির্দেশ কার্যকর হলে এক দিকে যেমন রাজ্যের বেসরকারি বাস পরিষেবা ভেঙে পড়বে, অন্যদিকে ভোগান্তি বাড়বে শহর কলকাতার (Kolkata) সাধারণ মানুষের। সম্প্রতি পরিবহণ দফতরের তরফে একটি নির্দেশিকা জারি করা হয়েছিল। সেখানে বলা হয়েছে ইউরো ফোরের গাড়িগুলিকে নতুন পারমিট দেওয়া যাবে। আর এই নির্দেশিকা সামনে আসার পরেই কিছুটা হলেও স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেছেন বেসরকারি বাসমালিকেরা। কারণ, এক্ষেত্রে ১ অগস্ট থেকে ১৫ বছরের পুরোনো বাস তুলে নেওয়ার পর অন্য রুটের নির্ধারিত বয়ঃসীমার বাস গুলিকে আবার যাত্রী পরিষেবার কাজে লাগানো যাবে। ঘটনার সূত্রপাত হয়েছিল পরিবেশকর্মী সুভাষ দত্তের ২০০৯ সালের একটি মামলাকে কেন্দ্র করে। সেই মামলার ভিত্তিতে কলকাতা হাই কোর্ট নির্দেশ দিয়েছিল ১৫ বছরের বেশি বয়সী কোনও বাস আর কলকাতা শহর কলকাতা মিউনিসিপ্যাল ডেভেলপমেন্ট অথিরিটি (কেএমডিএ)-র এলাকায় চালানো যাবে না। আরও পড়ুন: ED-র ৫ ঘণ্টা জেরা শেষ, বাইরে বেরিয়ে রেশন দুর্নীতি নিয়ে বড় কথা বললেন ঋতুপর্ণা মূলত কলকাতার পরিবেশ রক্ষার জন্যই এই নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এই মামলা নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন বাসমালিকদের সংগঠন। তারপরেই এবার পরিবহণ দফতর কলকাতা হাই কোর্টের নির্দেশ কার্যকর করার সিদ্ধান্ত নেয়। পরিবহণ দফতরের নির্দেশিকা অনুযায়ী, কোভিড সংক্রমণের সময়েই বহু বাসের রুট উঠে গিয়েছিল। সেই রুটগুলিতে এমন অনেক বাস রয়েছে, যেগুলির বয়স ১৫ বছর পেরোতে এখনও ৫-১০ বছর বাকি। তাই এবার সেই বাসগুলিকেই পরিবহণ দফতর থেকে পারমিট বদল করিয়ে নতুন ভাবে চালানোর পরিকল্পনা করা হচ্ছে।প্রসঙ্গত পরিবহণ দফতর সূত্রে খবর, বর্তমানে কলকাতায় প্রতি দিন চার থেকে পাঁচ হাজার বেসরকারি বাস চলে। কিন্তু আদালতের নির্দেশ কার্যকর হলে আগামী দিনে এই সংখ্যা অর্ধেক হয়ে যাবে বলেই আশঙ্কা করছেন বেসরকারি বাসমালিকরা।

  • অভিষেককে নিয়ে বড় ভুল স্বীকার পশ্চিমবঙ্গ সরকারের! তোলপাড় হাইকোর্ট

    বাংলাহান্ট ডেস্ক : পুলিশের পক্ষ থেকে রাজভবনের সামনে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে (Abhishek Banerjee) ধরনার অনুমতি দেওয়া অন্যায় হয়েছে। রাজ্য সরকারের আইনজীবী বুধবার কার্যত এই কথাই স্বীকার করে নিলেন কলকাতা হাইকোর্টে (Calcutta Highcourt)। নির্বাচন পরবর্তী হিংসায় আক্রান্তদের নিয়ে রাজভবনের সামনে বিরোধী দলনেতার শুভেন্দু অধিকারী বসতে চেয়েছিলেন ধরনায়। আদালতে সেই আবেদনের শুনানিতে আজ বিচারপতি অমৃতা সিনহা রাজ্যের আইনজীবীর কাছে জানতে চান, পুলিশ কী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ১৪৪ ধারা অমান্যের ক্ষেত্রে? রাজ্য সরকারের এজি বিচারপতির এই প্রশ্নের সদুত্তর দিতে ব্যর্থ হন। শুভেন্দু অধিকারীর আইনজীবী বিল্বদল ভট্টাচার্য বুধবার আদালতে বলেন, আগে রাজভবনের যে জায়গায় ১৪৪ ধারা জারি থাকে সেখানে রাজ্য পুলিশ অনুমতি দিয়েছে রাজনৈতিক কর্মসূচি করার। আরোও পড়ুন : আমজনতার জন্য নয়া আপডেট! শেষ মেট্রোর সময়সূচিতে বিরাট পরিবর্তন! জানুন নতুন টাইম সেই কর্মসূচি ওই জায়গায় পাঁচ দিন ধরে চলেছিল। এই কথা শোনার পর অমৃতা সিনহা রাজ্যের আইনজীবীকে জিজ্ঞাসা করেন, যে নেতা গত অক্টোবর মাসে ১৪৪ ধারা অমান্য করে রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করেছিলেন রাজভবনের সামনে, তাঁর বিরুদ্ধে পুলিশ কী ব্যবস্থা নিয়েছে? রাজ্য সরকারকে এই প্রশ্নের জবাব দিতে হবে আগামী শুনানির দিন। বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর আইনজীবী আদালতের তারপর বলেন, শান্তিপূর্ণভাবে ধরনায় অংশগ্রহণ করেন বিজেপি কর্মীরা। অন্তত এক ঘন্টার জন্য তাদের যেন ধরনায় বসতে দেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়। যদিও আদালতের পক্ষ থেকে এই ব্যাপারে কোনও রকমের নিশ্চয়তা দেওয়া হয়নি। বুধবার বিকেলে শুভেন্দু অধিকারীর ধরনায় বসার কথা ছিল। তবে আদালতের পক্ষ থেকে নিশ্চয়তা না মেলায় সেই কর্মসূচি স্থগিত রাখা হয়েছে। এই মামলার পরবর্তী শুনানি রয়েছে আগামী ২১শে জুন।

  • ED-র ৫ ঘণ্টা জেরা শেষ, বাইরে বেরিয়ে রেশন দুর্নীতি নিয়ে বড় কথা বললেন ঋতুপর্ণা

    বাংলা হান্ট ডেস্ক:লোকসভা নির্বাচনের মুখেই রাজ্যের রেশন দুর্নীতিতে (Ration Scam) নাম জড়িয়েছিল টলিউডের (Tollywood) জনপ্রিয় অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত (Rituparna Sengupta)। সেসময় দুর্নীতিতে নিজের নাম উঠে আসায় কার্যত আকাশ থেকে পড়েছিলেন অভিনেত্রী। নোটিশ আসার পর এই মামলায় সিজিও কমপ্লেক্সে ইডি (ED) দপ্তরের হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল অভিনেত্রীকে। সেই নির্দেশ অমান্য করেননি অভিনেত্রীও। টানা পাঁচ ঘণ্টা ইডির জেরার মুখে পড়ার পর এদিন কলকাতায় ইডির দফতর সিজিও কমপ্লেক্স থেকে বেরিয়ে আসেন ঋতুপর্ণা। আর এদিন ইডির দপ্তর থেকে বেরিয়ে এসেই অভিনেত্রী দাবি করেছেন, ‘রেশন দুর্নীতি’র সঙ্গে তাঁর কোনও সম্পর্ক নেই। তবে তাঁর কাছে যা নথিপত্র চাওয়া হয়েছিল, তা তিনি তদন্তকারীদের হাতে তুলে দিয়ে এসেছেন। এদিন ঋতুপর্ণার আইনজীবী বিপ্লব গোস্বামী বলেছেন, ‘জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের সঙ্গে কিছু হয়নি। তলবের নথিতেও জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের নাম ছিল না। সিনেমা প্রযোজনার জন্য কিছু লেনদেন হয়েছিল। সেই টাকা ফেরত দেওয়া হয়ে গিয়েছে।’ আইনজীবীকে সঙ্গে নিয়েই বুধবার দুপুর ১২টা ৫৫ মিনিটে ইডির দফতরে গিয়েছিলেন অভিনেত্রী। এর টানা প্রায় পাঁচ ঘণ্টা জেরার পর বুধবার বিকেল ৫টা ৪৯ মিনিট নাগাদ সিজিও কমপ্লেক্স থেকে বেরিয়ে আসেন টলি কুইন। আরও পড়ুন: বন্ধ হয়ে যাবে সিম, KYC নিয়ে আসছে ফোন! আপনার কাছে এলে কী করবেন? এদিন তদন্তকারী সংস্থার দপ্তর থেকে বেরিয়ে গাড়িতে ওঠার আগে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে ঋতুপর্ণা বলেন, ‘আমার সহযোগিতায় তদন্তকারীরা খুশি। এই দুর্নীতির সঙ্গে আমার কোনও সম্পর্ক নেই। ওঁরাও সহযোগিতা করেছেন, আমিও সহযোগিতা করেছি।’প্রসঙ্গত ইডির তরফে এপ্রসঙ্গে আনুষ্ঠানিকভাবে এই বিষয়ে সবিস্তারে কিছুই জানানো হয়নি।     ইডির তদন্তকারী আধিকারিকদের দাবি রেশন দুর্নীতি মামলায় গ্রেফতার হওয়া এক অভিযুক্তের সঙ্গে নাকি ঋতুপর্ণার আর্থিক লেনদেনের তথ্য পেয়েছেন তদন্তকারীরা। এমনকি ওই অভিযুক্তের সঙ্গে প্রায় কোটির অঙ্কে আর্থিক লেনদেন হয়েছে এক সংস্থার, যার প্রোপ্রাইটর হিসাবে নাকি নাম রয়েছে অভিনেত্রী ঋতুপর্ণার।

  • আমজনতার জন্য নয়া আপডেট! শেষ মেট্রোর সময়সূচিতে বিরাট পরিবর্তন! জানুন নতুন টাইম

    বাংলাহান্ট ডেস্ক : শেষ মেট্রোর (Kolkata Metro) সময়সূচী পরিবর্তন করে দেওয়া হলো মেট্রো কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে। দুই প্রান্তিক স্টেশন থেকে শেষ মেট্রো ছাড়বে রাত ১০টা ৪০ মিনিটে। আগে রাত ১১টার সময় মেট্রো ছাড়তো। নতুন সময়সূচি অনুযায়ী সোমবার থেকে রাত্রিবেলার শেষ মেট্রো ছুটবে বলে খবর। যাত্রীদের সুবিধার কথা চিন্তা করে পরীক্ষামূলক ভিত্তিতে ব্লু লাইনে বিশেষ রাত্রিকালীন মেট্রো পরিষেবা দিচ্ছে কলকাতা মেট্রো। সোমবার থেকে শুক্রবার কবি সুভাষ এবং দমদম স্টেশন থেকে রাত ১১টার সময় শেষ মেট্রো পাওয়া যেত এতদিন। ২৫ মে থেকে চলা বিশেষ মেট্রো বেশিরভাগ দিন ফাঁকা থাকে। একমাত্র রাত করে বাড়ি ফেরা কিছু অফিস কর্মী ছাড়া আর কেউ থাকেন না মেট্রোতে। স্টেশনে প্রবেশের অধিকাংশ গেটও বন্ধ থাকার কারণে, অনেকে আবার প্রবেশদ্বার খুঁজে না পেয়ে ফিরে যান। আরোও পড়ুন : দুর্দান্ত খবর! এবার হাতে আসবে দ্বিগুণ DA! কপাল খুলবে রাজ্যের সরকারি কর্মীদের, হয়ে গেল ঘোষণা বিগত ২০ দিন ধরে দিনে গড়ে ৬০০ জন করে যাত্রী উঠছেন আপ ডাউন মিলিয়ে দুটি মেট্রো রেলে। যাত্রীদের কাটা টিকিট থেকে মাত্র ৬ হাজার টাকার রোজগার হচ্ছে মেট্রোর। তাই মেট্রো পরিষেবা চালিয়ে নিয়ে যাওয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে মেট্রো কর্তৃপক্ষ নিজেই। এবার প্রেস বিজ্ঞপ্তি জারি করে মেট্রো কর্তৃপক্ষ (Metro Railway) জানিয়েছে, প্রত্যেক ট্রিপ মেট্রো চালাতে ১ লক্ষ ৩৫ হাজার টাকা খরচ হয়। আরোও পড়ুন : বন্ধ হয়ে যাবে সিম, KYC নিয়ে আসছে ফোন! আপনার কাছে এলে কী করবেন? অর্থাৎ দুটি মেট্রো চালাতে তার ডবল ২ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা খরচ। অন্যান্য খরচ হিসেবে যদি আরো ৫০ হাজার টাকা ধরা হয়, তাহলে ওই মেট্রো চালাতে গিয়ে প্রায় ৩ লাখ ২০ হাজার টাকা খরচ হয়। অথচ ওই দুই ট্রিপ মেট্রো থেকে আয় হচ্ছে মাত্র ৬ হাজার টাকা। ওই মেট্রো চালানো নিয়ে চিন্তার ভাঁজ কর্তৃপক্ষের কপালে। তাই আপাতত মেট্রোর সময় এগিয়ে নিয়ে লোকসান মেটানোর চেষ্টা করেছে কর্তৃপক্ষ। এবার রাত ১১টার পরিবর্তে রাত ১০টা ৪০ মিনিটে কবি সুভাষ এবং দমদম থেকে শেষ মেট্রো ছাড়বে। তবে সেই সময় কোন স্টেশনে টোকেন কিংবা স্মার্ট কার্ড বিক্রির জন্য কাউন্টার খোলা থাকবে না বলে জানানো হয়েছে। ব্যবহার করা যাবে স্মার্ট কার্ড। এছাড়া ইউপিআই এর মাধ্যমে সমস্ত স্টেশনে বসানো ASCRM মেশিন থেকে টোকেন কিনতে পারবেন যাত্রীরা।

  • দুর্দান্ত খবর! এবার হাতে আসবে দ্বিগুণ DA! কপাল খুলবে রাজ্যের সরকারি কর্মীদের, হয়ে গেল ঘোষণা

    বাংলাহান্ট ডেস্ক : গত রাজ্য বাজেট পেশ করার সময় অর্থমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য জানান রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের (State Government Employees) মে মাস থেকে চার শতাংশ মহার্ঘ ভাতা বৃদ্ধি করা হবে। আগে রাজ্য সরকারি কর্মচারীরা ১০% হারে মহার্ঘ ভাতা পাচ্ছিলেন। সেটি বৃদ্ধি পেয়ে ১৪ শতাংশ হবে। অপরদিকে, রাজ্য সরকার কিছুদিন আগে কলকাতা এবং রাজ্য পুলিশের হোমগার্ডদের অবসরকালীন ভাতাও বৃদ্ধি করেছে। এতদিন পর্যন্ত ৩ লক্ষ টাকা অবসরকালীন ভাতা পেতেন হোমগার্ডরা। সেই ভাতা বৃদ্ধি করে করা হয়েছে ৫ লক্ষ টাকা। তবে এই আবহে বড় সুখবর উঠে আসছে  শিক্ষক এবং শিক্ষাকর্মীদের জন্য। আরোও পড়ুন : বাড়িতে ঢুকে খুন! শাসক দলের হিংসার শিকার BJP কর্মীর বাবা, রাজ্যে ফের ভোট পরবর্তী হিংসার ছবি সম্প্রতি একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে রাজ্যের উচ্চ শিক্ষা দপ্তর। সেই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ২০২৪ সালের মে মাস থেকে ৪% মহার্ঘ ভাতা বৃদ্ধি পাওয়ার কথা ছিল শিক্ষক এবং শিক্ষাকর্মীদের। তবে সেই মহার্ঘ ভাতা বলবৎ হবে এক মাস আগে থেকে। অর্থাৎ রাজ্যের শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মীরা বর্ধিত মহার্ঘ ভাতা পাবেন এপ্রিল, ২০২৪ থেকে। আরোও পড়ুন : NEET নিয়ে যার অভিযোগে সরব হয়েছিল প্রিয়াঙ্কা, তাঁর নথিই জাল! অ্যাকশনে হাইকোর্ট ষষ্ঠ বেতন কমিশনের (6th Pay Commission) আওতায় এপ্রিল মাসে রাজ্যের শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মীরা ১০% হারে মহার্ঘ ভাতা পাচ্ছিলেন। তবে ভোটের পর রাজ্য সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এপ্রিল মাসেও ১৪ শতাংশ হারে মহার্ঘ ভাতা দেওয়া হবে। অর্থাৎ বকেয়া থাকছে ৪ শতাংশ মহার্ঘ ভাতা। জুন মাসের বেতনের সাথে এই অতিরিক্ত চার শতাংশ ভাতা দেওয়া হবে কর্মচারীদের। অর্থাৎ বাকি থাকা চার শতাংশ মহার্ঘ ভাতার (Dearness Allowance) সাথে মোট ১৮ শতাংশ মহার্ঘ ভাতা জুন মাসের বেতনের সাথে পাবেন কর্মচারীরা।  জুলাই মাস থেকে আবার পুনরায় ১৪ শতাংশ হারেই দেওয়া হবে মহার্ঘ ভাতা।

  • বাড়িতে ঢুকে খুন! শাসক দলের হিংসার শিকার BJP কর্মীর বাবা, রাজ্যে ফের ভোট পরবর্তী হিংসার ছবি

    বাংলাহান্ট ডেস্ক : এবার এক বিজেপি কর্মীর (Bharatiya Janata Party) বাবার প্রাণ গেল ভোট পরবর্তী হিংসায়। অভিযুক্ত তৃণমূল (Trinamool Congress) আশ্রিত দুষ্কৃতীরা। ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব মেদিনীপুরের অর্জুননগর অঞ্চলের ১৯৮ নম্বর বুথ ধাঁইপুকুরিয়া এলাকায়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে গোটা গ্রাম জুড়ে তুমুল উত্তেজনা ছড়িয়েছে। গ্রামবাসীরা অভিযুক্তদের কঠোর শাস্তির দাবি তুলেছেন। জানা গেছে, বিজেপি কর্মী শশাঙ্ক মাইতি পূর্ব মেদিনীপুরের অর্জুননগর অঞ্চলের ১৯৮ নম্বর বুথ ধাঁইপুকুরিয়া এলাকার বাসিন্দা। শশাঙ্কর পরিবার দাবি করেছে, তৃণমূলের করা মিথ্যা মামলার দায় দীর্ঘদিন ধরে বাড়ি ছাড়া শশাঙ্ক। আরোও পড়ুন : ফের বঞ্চিত বাংলা! বন্ধ হয়ে গেল এই প্রকল্পের টাকা! রাজ্যকে বেকায়দায় ফেলল কেন্দ্রীয় শিক্ষা মন্ত্রক মঙ্গলবার রাতে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীর দল হানা দেয় তাদের বাড়িতে। অভিযোগ শ্লীলতাহানির চেষ্টা করা হয় শশাঙ্কর মা, স্ত্রী ও বউদিকে। শশাঙ্কবাবুর বাবা গৌরহরি মাইতি সেই সময় তাদের বাঁচাতে এলে দুষ্কৃতীরা তাকে ঠেলা দেয়। দুষ্কৃতীদের ধাক্কায় গৌরহরি বাবু মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। তার চিৎকার শুনে ছুটে যান প্রতিবেশীরা। এরপর আহত গৌরহরি বাবুকে নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে। সেখানে চিকিৎসকেরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। পুলিশ গৌরহরি বাবুর দেহ পাঠিয়েছে ময়নাতদন্তের জন্য। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে শাসক-বিরোধী তরজা তুঙ্গে।

  • ফের বঞ্চিত বাংলা! বন্ধ হয়ে গেল এই প্রকল্পের টাকা! রাজ্যকে বেকায়দায় ফেলল কেন্দ্রীয় শিক্ষা মন্ত্রক

    বাংলাহান্ট ডেস্ক : কেন্দ্রীয় প্রকল্পে আবারো টাকা বন্ধ করে দেওয়া হলো কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে। কেন্দ্রীয় শিক্ষা মন্ত্রকের তরফে ‘সমগ্র শিক্ষা অভিযানে’ পশ্চিমবঙ্গকে টাকা দেওয়া বন্ধ দেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে রাজ্য সরকারকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, সমগ্র শিক্ষা অভিযানের এই টাকা পেতে হলে প্রথমে ‘পিএম শ্রী’ চুক্তি করতে হবে। আর তা না হলে এই অর্থ দেওয়া যাবে না রাজ্যকে। কিন্তু শিক্ষা মন্ত্রকের পক্ষ থেকে রাজ্যকে (West Bengal) সম্প্রতি এই কথা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকারের (Central Government) পক্ষ থেকে ৬০ শতাংশ রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে ৪০ শতাংশ টাকা দেওয়া হয় সমগ্র শিক্ষা অভিযান প্রকল্পে। আরোও পড়ুন : আমেরিকাকে হুমকি দিয়ে এবার পস্তাচ্ছে চিন! খেলা ঘুরিয়ে বাইডেন বাড়িয়ে দিলেন জিনপিংয়ের চিন্তা কেন্দ্রের যুক্তি অসংবিধানিক উল্লেখ করে আবারো কেন্দ্রের কাছ থেকে টাকা চেয়ে চিঠি দিয়েছে রাজ্য সরকার। এই কারণ দেখিয়ে ফের কেন্দ্রের থেকে টাকা চেয়ে চিঠি দিল রাজ্য সরকার। সমগ্র শিক্ষা অভিযান (Samagra Shiksha Abhiyaan) প্রকল্পে গত জানুয়ারি মাসের পর থেকে রাজ্য সরকার কেন্দ্রের থেকে ২০০০ কোটি টাকা প্রাপ্য। পর্যন্ত কেন্দ্রের তরফ থেকে সমগ্র শিক্ষা অভিযান প্রকল্পে চলতি অর্থ বর্ষের টাকা বরাদ্দ করা হয়নি রাজ্যকে। সেই নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারকে চিঠি দেওয়া হয়েছে নবান্নের তরফ। স্কুলের পরিকাঠামো নির্মাণ, স্কুল বিল্ডিং তৈরি সহ বিভিন্ন কাজ চলে সমগ্র শিক্ষা অভিযান প্রকল্পের আওতায়। রাজ্যের অভিযোগ, কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রক টাকা দেওয়ার ছাড়পত্র দিলেও সেই টাকা আটকে রেখেছে কেন্দ্রীয় শিক্ষা মন্ত্রক।

  • ফিরতে চান পুরনো দলে! তৃণমূল কংগ্রেসের সাথে সম্পর্ক শেষ করতে মরিয়া অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়

    বাংলাহান্ট ডেস্ক : বাংলায় কংগ্রেসের অবস্থা কেমন, তা আর আলাদা করে বলে দিতে হবে না। তারপরেও কংগ্রেসের মরা গাঙে জোয়ার আনতে চান প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের পুত্র অভিজিৎ মুখোপাধ্যায় (Abhijit Mukherjee)। সূত্রের খবর, কংগ্রেস ফিরতে চেয়ে দিল্লিতে দলের হাই কম্যান্ডের সঙ্গে নাকি যোগাযোগ করেছেন জঙ্গিপুরের প্রাক্তন সাংসদ। তাই শীর্ষ নেতৃত্বের পক্ষ থেকে ছাড়পত্র মিললেই অভিজিতের কংগ্রেসে যোগদান শুধুমাত্র সময়ের অপেক্ষা। একটা সময় কংগ্রেসের (Indian National Congress) সাংসদ ছিলেন অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়। প্রণব মুখোপাধ্যায় রাষ্ট্রপতি হওয়ার পর, তাঁর ছেড়ে যাওয়া জঙ্গিপুর আসন থেকে উপনির্বাচনে জয়লাভ করে সাংসদ হয়েছিলেন তাঁরই পুত্র অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়। ২০১৪ সালে লোকসভা নির্বাচনে তিনি আবারও সাংসদ হন জঙ্গিপুর থেকে। তবে পরেরবার লোকসভা নির্বাচনে অর্থাৎ ২০১৯ সালে অভিজিৎ জঙ্গিপুরে তৃণমূল প্রার্থীর কাছে প্রচুর ভোটে হেরে যান। তারপরেই কংগ্রেসে নিষ্ক্রিয় হয়ে যান তিনি। আরোও পড়ুন : কাঞ্চনজঙ্ঘা দুর্ঘটনায় নতুন তথ্য! জীবিত মালগাড়ির চালক খাতায়-কলমে মৃত, রেলের কাণ্ডে ফুঁসছে সবাই এরপর ২০২১ সালের জুলাই মাস নাগাদ অভিজিৎ মুখোপাধ্যায় কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূলে (Trinamool Congress) যোগ দেন। তবে তাঁকে কোনো কাজেই সেভাবে ব্যবহার করেনি তৃণমূল নেতৃত্ব। লোকসভা বা বিধানসভা কোনো নির্বাচনে টিকিট পাননি তৃণমূলের থেকে। বিগত তিন বছর তৃণমূল সক্রিয় ছিলেন না অভিজিৎ।তবে এবার পুরোনো দলে ফিরতে চাইছেন তিনি।অভিজিৎবাবু জানান, তিনি এবং তাঁর অনুগামীরা তৃণমূল থাকলেও কংগ্রেস ফেরার ইচ্ছে প্রকাশ করেছেন। গত কয়েক বছর ধরে একের পর এক দুর্নীতিতে যেভাবে তৃণমূলের নাম জড়াচ্ছে, তাতে সেই দলে আর থাকতে চাইছেন না তিনি।   সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই কংগ্রেস হাই কম্যান্ডের সঙ্গে কথা বলে দলে প্রত্যাবর্তন করতে চেয়ে যোগাযোগ করেছেন অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়। বর্তমানে অভিজিৎ বাবুর পরিবারের কেউ কংগ্রেসের সঙ্গে যুক্ত নন। দলের সঙ্গে দূরত্ব বেড়ে গিয়েছে প্রণববাবুর কন্যা শর্মিষ্ঠা মুখোপাধ্যায়ের। তাই অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়কে দলে ফেরাতে আপত্তি থাকার কথা নয় কংগ্রেসের উচ্চ নেতৃত্বের।

  • কাঞ্চনজঙ্ঘা দুর্ঘটনায় নতুন তথ্য! জীবিত মালগাড়ির চালক খাতায়-কলমে মৃত, রেলের কাণ্ডে ফুঁসছে সবাই

    বাংলা হান্ট ডেস্ক: শুরু থেকেই কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসের (Kanchenjunga Express) ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনার (Train Accident) জন্য গাফিলতির অভিযোগ উঠছে রেলের (Rail) বিরুদ্ধে। কিন্তু সেই গাফিলতি কতটা সর্বব্যাপী তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। মঙ্গলবার বিকেলে জানা যায় দুর্ঘটনাগ্রস্থ মালগাড়ির সহকারী চালক মনোকুমার জীবিত। অথচ দুর্ঘটনার কয়েক ঘন্টার  মধ্যেই সাংবাদিক বৈঠক করে তাকে মৃত ঘোষণা করেছিলেন খোদ রেল বোর্ডের চেয়ারপারসেন জয় বর্মা সিনহা। সোমবার সকাল সাড়ে আটটা নাগাদ নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশন থেকে কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেস ছেড়ে আসার কয় কিলোমিটার দূরত্বের মধ্যে ভয়াবহ দুর্ঘটনার কবলে পড়ে কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেস। এদিন শিয়ালদা গামী এই ট্রেনটিকে পিছন থেকে ধাক্কা মারে একটি মালগাড়ি। তবে প্রাথমিক তদন্ত থেকে জানা যাচ্ছে, ঘটনার সময় সময় রেল লাইনের ওই অংশে স্বয়ংক্রিয় সিগনালিং ব্যবস্থা একেবারে কাজ করছিল না। যার ফলে পেপার সিগন্যালের ওপরে চলছিল ট্রেন।  আর এদিনের এই দুর্ঘটনার কয়েক ঘন্টার পরেই সাংবাদিক বৈঠক করেন রেল বোর্ডের চেয়ার পার্সন। ঐদিন সাংবাদিক বৈঠক শেষে তিনি জানিয়েছিলেন, দুর্ঘটনায় মালগাড়ির চালক ও সহকারী চালক উভয়যেরই মৃত্যু হয়েছে। তাই  তাঁর এই ঘোষণার পর দুর্ঘটনার কারণ কী করে জানা যাবে তা নিয়ে সন্দিহান ছিল রেল। অন্যদিকে ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত শুরু করে দেয় কমিশনার অফ রেলওয়ে সেফটি। এসবের মধ্যেই মঙ্গলবার বিকেলে জানা যায় শিলিগুড়ির একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন মালগাড়ির সহকারী চালক মনু কুমার। আরও পড়ুন: হজে যাওয়াই হল কাল! সৌদিতে চরমে উঠল তাপমাত্রা, রেকর্ড গরমে মৃত্যু ৫৫০ পুণ্যার্থীর দুর্ঘটনার কবলে পরে তাঁর অবস্থা আশঙ্কাজনক হলেও তিনি দ্রুত সুস্থ হচ্ছেন বলেও জানা যায়। পারিবারিক  সূত্রে খবর, ঘটনার পর তাঁকে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে যাওয়া হয়নি। সরাসরি তাঁকে বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। মনু কুমারের জীবিত থাকার খবর পেয়ে তদন্তকারীরা জানিয়েছেন একটু সুস্থ হয়ে  কথা বলার মতো অবস্থায় এলে মনু কুমারকেও জেরা করা হবে। অন্যদিকে দুর্ঘটনা মোকাবিলাতেও রেলের বিরুদ্ধে উঠেছে চরম গাফিলতির অভিযোগ। দুর্ঘটনাগ্রস্ত রেল  যাত্রীদের  অভিযোগ, দুর্ঘটনার ২ ঘণ্টা পর রেলের কর্মীরা সেখানে পৌঁছে আহত যাত্রীদের সাহায্য করার বদলে ছবি তুলতে ব্যস্ত ছিলেন। কিন্তু উদ্ধারকাজ চালিয়েছেন স্থানীয় যুবকরা। আর খোদ রেল বোর্ডের চেয়ারম্যান তাঁরই দফতরের জীবিত কর্মীকে মৃত ঘোষণা করে দেওয়ায় ব্যাপক অস্বস্তিতে রেল কর্তৃপক্ষ।

  • গরমের ছুটির কারণে পড়াশোনার ঘাটতি, এবার রবিবারেও যেতে হবে স্কুল! জানুন নয়া বিজ্ঞপ্তি!

    বাংলা হান্ট ডেস্কঃ উত্তরবঙ্গে ঝেঁপে বৃষ্টি হলেও, দক্ষিণবঙ্গে গরম অব্যাহত। বৃষ্টির পূর্বাভাস থাকলেও সেভাবে বৃষ্টি হচ্ছে না। ফলত গরমও তেমন কমছে না। কিছু কিছু জায়গায় তো তাপমাত্রার পারদ ৪০-৪৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়িয়ে গিয়েছে! এমতাবস্থায় শেষ হয়েছে গরমের ছুটি (Summer Vacation)। ফের শুরু হয়েছে স্কুল। গুমোট গরমের মধ্যেই স্কুলে যেতে হচ্ছে পড়ুয়াদের। অনেকে ভেবেছিলেন, গরম এখনও বজায় থাকায় ছুটি হয়তো বাড়িয়ে দেওয়া হবে। তবে এমনটা হয়নি। কারণ এরপর যদি ছুটি বাড়ানো হয় তাহলে সিলেবাস শেষ করা সম্ভব হবে না। তবে শিক্ষা দফতরের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, অতিরিক্ত গরমের কারণে বিদ্যালয়ের (School) সময়সূচিতে বদল আনা যেতে পারে। দরকার হলে বেলার বদলে সকাল সকাল ক্লাস শুরু করতেও অসুবিধা নেই। তবে মিড ডে মিল প্রকল্পে এক্ষেত্রে কোনও বদল আনা হয়নি। গরমের থেকে রেহাই পেতে ইতিমধ্যেই বহু বিদ্যালয়ে সকাল সকাল পঠনপাঠন শুরু হয়েছে। কিন্তু তাতেও সিলেবাস শেষ করা কঠিন হয়ে দাঁড়াচ্ছে বলে খবর। দ্বিতীয় সমেটিভ পরীক্ষা আসন্ন। তাহলে উপায়? শেষে পড়াশোনার ঘাটতি মেটাতে এক অভিনব উপায় বের করল সিউড়ী (Suri) ১ নম্বর ব্লকের কড়িধ্যা যদুরায় মেমোরিয়াল হাই স্কুল। আরও পড়ুনঃ পুলিশি হেফাজতে BJP কর্মীর মৃত্যু! CBI তদন্তের আর্জি জানিয়ে মামলা, চরম পদক্ষেপ হাই কোর্টের! সিলেবাস শেষ করতে ছুটির দিন তথা রবিবারেও পঠনপাঠনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিদ্যালয়ের শিক্ষক তাপসবাবু এই প্রসঙ্গে জানান, একটানা ৫০ দিনের ছুটি থাকার কারণে পড়াশোনায় অনেকটাই প্রভাব পড়েছে, ঘাটতি তৈরি হয়েছে। এদিকে পরীক্ষা আসন্ন। সেই কারণে শিক্ষক-শিক্ষিকারা মিলে এই পন্থা খুঁজে বের করেন। পড়াশোনার ঘাটতি মেটাতেই এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। তাপসবাবু বলেন, প্রথম প্রথম অভিভাবকরা এই সিদ্ধান্তে সায় দেবেন কিনা তা নিয়ে একটা প্রশ্ন ছিল। তবে প্রস্তাব দেওয়ার পর দেখা যায়, রাজি তো হয়েছেনই, উল্টে প্রথমদিনের উপস্থিতির হারও বেশ ভালো। ছাত্রছাত্রীরাও ভালো সাড়া দিচ্ছেন বলে জানান তিনি। জানা যাচ্ছে, প্রত্যেক রবিবার একই ছাত্রছাত্রীদের ক্লাস নেওয়া হচ্ছে না। প্রতি সপ্তাহে ভিন্ন ভিন্ন শ্রেণির ছেলেমেয়েদের পড়ানো হচ্ছে। শুরুতে নবম শ্রেণির অঙ্ক, বাংলা, ভূগোলের ক্লাস নেওয়া হয়েছে। পরের দিন আবার অন্য একটি শ্রেণির শিক্ষার্থীদের ক্লাস নেওয়া হয়। পড়াশোনার ঘাটতি মেটাতে সিউড়ির এই বিদ্যালয়ের তরফ থেকে যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে তার প্রশংসা করেছেন অনেকেই।

  • পুলিশি হেফাজতে BJP কর্মীর মৃত্যু! CBI তদন্তের আর্জি জানিয়ে মামলা, চরম পদক্ষেপ হাই কোর্টের!

    বাংলা হান্ট ডেস্কঃ লোকসভা নির্বাচন ফলাফল ঘোষণা দিন ডেবরায় সংঘর্ষে জড়ায় তৃণমূল বিজেপি। সেই ঘটনার জেরে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হন গেরুয়া শিবিরের এক কর্মী। পরবর্তীতে পুলিশি হেফাজতে থাকাকালীন প্রাণ হারান ওই ব্যক্তি। মঙ্গলবার এই নিয়ে সরব হয়েছিলেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। এবার সেই ঘটনায় CBI তদন্তের দাবি জানিয়ে কলকাতা হাই কোর্টের (Calcutta High Court) দ্বারস্থ হল ওই BJP কর্মীর পরিবার। পুলিশি হেফাজতে প্রয়াত ওই BJP কর্মীর নাম সঞ্জয় বেরা (৪২)। আদালতের কাছে তাঁর পরিবার বলেন, ‘গত ৪ জুন ডেবরায় সংঘর্ষের পর সঞ্জয়কে যখন গ্রেফতার করা হয়, সেই সময় তাঁর শরীরে কোনও চোটের চিহ্ন ছিল না। তবে এরপরের দিন যখন তাঁকে আদালতে পেশ করা হয় সেই সময় তাঁর মাথায় ব্যান্ডেজ দেখা যায়’। Custodial Death of @BJP4Bengal Karyakarta due to Mamata Police Brutality. Name – Sanjoy Bera Age – 42 Address – Purushottam Nagar, Debra; Paschim Medinipur District Police arrested him on 4th June after TMC-BJP scuffle. Was sent to Judicial Custody. Got admitted to Medinipur… pic.twitter.com/ZpnyfTiL7X — Suvendu Adhikari (@SuvenduWB) June 18, 2024 সঞ্জয়ের সঙ্গে ঠিক কী ঘটেছিল? তা খতিয়ে দেখার জন্য CBI-র হাতে তদন্তভার তুলে দেওয়ার আর্জি জানিয়েছে তাঁর পরিবার। সেই সঙ্গেই কেন্দ্রীয় সরকারের নিয়ন্ত্রণাধীন হাসপাতালে প্রয়াত BJP কর্মীর মৃতদেহ ময়নাতদন্তের আর্জিও জানানো হয়েছে। হাই কোর্টের বিচারপতি অমৃতা সিনহা (Justice Amrita Sinha) এই নিয়ে মামলার করার অনুমতি দিয়েছেন। দুপুর ২টো নাগাদ জাস্টিস সিনহার এজলাসেই ওই মামলার শুনানি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আরও পড়ুনঃ রাজ্যের মহিলাদের জন্য সুখবর! লক্ষ্মীর ভাণ্ডারের পর চালু হচ্ছে অন্নপূর্ণা ভাণ্ডার! কত টাকা পাওয়া যাবে? এদিকে গতকালই এই ঘটনা নিয়ে সরব হয়েছিলেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু (Suvendu Adhikari)। এই প্রসঙ্গে এক্স হ্যান্ডেলে লেখেন, ‘মমতা পুলিশের অত্যাচারে BJP কার্যকর্তার পুলিশি হেফাজতে মৃত্যু’। নন্দীগ্রামের বিধায়কের সংযোজন, ‘পুলিশ ৪জুন তাঁকে গ্রেফতার করেছিল। পরে তাঁকে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করাতে হয়। এরপর ফের মেদিনীপুরের প্রেসিডেন্সি জেলে তাঁকে নিয়ে আসা হয়। এরপর ফের ১১ জুন পিজি হাসপাতালে ভর্তি করাতে হয়। ৭ দিন পর, মঙ্গলবার তাঁর মৃত্যু হয়’। এই বিষয়ে সরব হওয়ার পাশাপাশি এই বিষয়টি নিয়ে প্রকাশ্যে CBI তদন্ত কিংবা বিচারবিভাগীয় তদন্তের দাবি তোলেন শুভেন্দু। সেই সঙ্গেই পুলিশের সাহায্যে রাজ্যের বিরোধীদের চুপ করানোর অভিযোগও এনেছিলেন তিনি। এবার এই নিয়ে হাই কোর্টের দ্বারস্থ হলেন সঞ্জয়ের পরিবার।

  • রাজ্যের মহিলাদের জন্য সুখবর! লক্ষ্মীর ভাণ্ডারের পর চালু হচ্ছে অন্নপূর্ণা ভাণ্ডার! কত টাকা পাওয়া যাবে?

    বাংলা হান্ট ডেস্কঃ ২০২৪ লোকসভা নির্বাচনে লক্ষ্মীর ভাণ্ডারকে (Lakshmir Bhandar) সামনে রেখে চালিয়েছিল তৃণমূল। বহু জায়গায় এই প্রকল্প নিয়ে বলতে শোনা গিয়েছে রাজ্যের শাসক দলের নেতা-নেত্রীদের। তার পাল্টা আবার বিজেপির তরফ থেকে অন্নপূর্ণা ভাণ্ডারের (Annapurna Bhandar) কথা বলা হয়। রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী থেকে শুরু করে বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার, প্রত্যেকেই ভোটের সময় অন্নপূর্ণা ভাণ্ডারকে সামনে রাখেন। এবার ভোট মিটতেই এই নিয়ে শুরু হল চর্চা। পশ্চিমবঙ্গ সরকারের (Government of West Bengal) লক্ষ্মীর ভাণ্ডার প্রকল্পে জেনারেল কাস্টের মহিলারা প্রত্যেক মাসে ১০০০ টাকা এবং তফসিলি জাতি-উপজাতি এবং অনগ্রসর জনজাতির মহিলারা মাসিক ১২০০ টাকা করে ভাতা পান। এর পাল্টা হিসেবে BJP-র তরফ থেকে অন্নপূর্ণা ভাণ্ডার তুলে ধরা হয়। মেদিনীপুরের (Medinipur) পদ্ম প্রার্থী অগ্নিমিত্রা পালও ভোট প্রচারে বেরিয়ে অন্নপূর্ণা ভান্দারে মাসিক ৩০০০ টাকা দেওয়ার কথা বলেন। এবার এই নিয়েই ফ্লেক্স পড়ল মেদিনীপুর সদর ব্লকের গুড়গুড়িপালে। মেদিনীপুর সদর ব্লকের মণিদহ গ্রাম পঞ্চায়েতের গুড়গুড়িপাল পূর্ব গ্রাম সংসদ পূর্ব পঞ্চায়েত ভোটে BJP-র দখলে চলে যায়। এবারের লোকসভা নির্বাচনে এই সংসদে তৃণমূলের জুন মালিয়ার থেকে এগিয়ে ছিলেন BJP-র অগ্নিমিত্রা পাল। যদিও শেষ অবধি জয়ী হয়েছেন জুন। এবার ভোটের রেজাল্ট বেরনোর সপ্তাহ দুয়েকের মাথায় অন্নপূর্ণা ভাণ্ডার নিয়ে ফ্লেক্স পড়ল গুড়গুড়িপালে। আরও পড়ুনঃ রেশন দুর্নীতি মামলায় নয়া মোড়! বুধেই ED দফতরে হাজিরা দিতে পারেন ঋতুপর্ণা, আজই সব ফাঁস? সেই ফ্লেক্সে লেখা রয়েছে, ‘গুড়গুড়িপাল পূর্ব গ্রাম সংসদে আগামী ১ জুলাই থেকে শুরু হতে চলেছে অন্নপূর্ণা ভাণ্ডার ৩০০০ টাকা’। ১৫ জুন থেকে ৩০ জুন অবধি আবেদন করা যাবে বলে উল্লেখ রয়েছে সেখানে। ফ্লেক্সে আরও লেখা, ‘ফর্মের জন্য যোগাযোগ করুন বিজেপির মিথ্যাবাদী নেতাদের কাছে। প্রচারে গুড়গুড়িপাল পূর্ব গ্রাম সংবাদ’। যদিও কে বা কারা এই ফ্লেক্স লাগিয়েছে তা এখনও জানা যায়নি। BJP-র তরফ থেকে এই নিয়ে তৃণমূলের দিকে আঙুল তোলা হয়েছে। স্থানীয় TMC নেতা গৌতম বিশই এই প্রসঙ্গে বলেন, ‘ফ্লেক্স কারা টাঙিয়েছে সেটা বলতে পারব না। তবে BJP-র কার্যকর্তারা নির্বাচনী প্রচারে বেরিয়ে বলেছিলেন কেন্দ্রে যদি নরেন্দ্র মোদী প্রধানমন্ত্রী হন তাহলে অন্নপূর্ণা ভাণ্ডার প্রকল্পে মহিলাদের ৩০০০ টাকা দেওয়া হবে। সেই কারণে এখন গ্রামবাসীরা দাবি করছেন’। অন্যদিকে পদ্ম শিবিরের মণ্ডল সভাপতি সুজিত জানা বলেন, ‘TMC-র লোকেরা এই সকল পোস্টার দিয়ে এলাকায় বিভ্রান্তি তৈরি করার চেষ্টা করছে। মানুষ সেটা মেনে নেবে না। আমরা বলছি রাজ্য যদি BJP সরকার আসে তাহলে ৫০০০ আকা করে অন্নপূর্ণা ভাণ্ডার মাতৃশক্তিকে দেওয়া হবে’। এদিকে এই প্রসঙ্গে স্থানীয় মহিলা হীরা পাতর বলেন, ‘BJP-র লোকজন নির্বাচনী প্রচারে আমার বাড়ি গিয়ে বলেছিল, কেন্দ্রে যদি মোদী সরকার আসে তাহলে মহিলাদের ৩০০০ টাকা করে দেওয়া হবে। এখন তো কেন্দ্রে মোদী সরকার রয়েছে, তাহলে এবার দিক’।

  • কঠোর সিদ্ধান্ত মেট্রোর, আর চলবে না এই ট্রেন!

    বাংলাহান্ট ডেস্ক : পরীক্ষামূলকভাবে কিছুদিন আগে রাত এগারোটায় শেষ ট্রেন (Metro Services) চালানোর উদ্যোগ নিয়েছিল কলকাতা মেট্রো (Kolkata Metro)। তবে পর্যাপ্ত যাত্রী না হওয়ায় সেই সিদ্ধান্তে এবার ইতি পড়ল। রাত এগারোটার মেট্রোতে হচ্ছে না পর্যাপ্ত যাত্রী। তাই বিপুল টাকা লোকসান হচ্ছে কর্তৃপক্ষের। পরীক্ষামূলকভাবে গত ২৪শে মে থেকে সোমবার থেকে শুক্রবার রাত ১১ টায় বিশেষ ট্রেন চালানোর উদ্যোগ নেয় কলকাতা মেট্রো। দমদম এবং কবি সুভাষ এই দুই স্টেশন থেকেই শেষ মেট্রো ছেড়েছিল রাত এগারোটায়। দেশের বহু মেট্রো লাইন রয়েছে যেখানে গভীর রাত পর্যন্ত ট্রেন চলাচল করে। কলকাতা মেট্রো সেই পথেই অগ্রসর হতে চেয়েছিল। আরোও পড়ুন : রেশন দুর্নীতি মামলায় নয়া মোড়! বুধেই ED দফতরে হাজিরা দিতে পারেন ঋতুপর্ণা, আজই সব ফাঁস? কলকাতা মেট্রো সূত্রে জানা গেছে, ২৪ শে মে রাত ১১ টার মেট্রোয় ৬০০ জন যাত্রী হয়েছিল। সেদিন ভাড়া বাবদ মাত্র ৬ হাজার টাকা আয় হয়েছিল কর্তৃপক্ষের। তবে ৩ লক্ষ ২০ হাজার টাকা খরচ হয়ে যায় একদিন রাত ১১ টায় মেট্রো চালাতে। যার জেরে বিপুল ক্ষতির মুখে পড়ছে কলকাতা মেট্রো। তাই আপাতত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে রাত ১১টার মেট্রো বন্ধ রাখার। রাত ১১ টায় পরীক্ষামূলকভাবে একদিন চালানো হয়েছিল মেট্রো। যাত্রী চাহিদা বুঝে মেট্রো কর্তৃপক্ষ চেয়েছিল প্রতিদিন সেই পরিষেবা দিতে। তবে পর্যাপ্ত যাত্রী না হওয়ায় বিপুল আর্থিক ক্ষতির মুখোমুখি হয়েছে মেট্রো। কবি সুভাষ ও দমদম থেকে এতদিন রাত ৯:৪০ মিনিটে শেষ মেট্রো যেমন ছাড়ত, তেমনই চলবে আগামী দিনেও।

  • রেশন দুর্নীতি মামলায় নয়া মোড়! বুধেই ED দফতরে হাজিরা দিতে পারেন ঋতুপর্ণা, আজই সব ফাঁস?

    বাংলা হান্ট ডেস্কঃ রেশন দুর্নীতি মামলা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে তোলপাড় রাজ্য রাজনীতি। এই মামলায় ইতিমধ্যেই একাধিক হেভিওয়েটের নাম জড়িয়েছে। গ্রেফতার হয়েছেন রাজ্যের প্রাক্তন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। এরপর সেই জল গড়িয়েছে বহুদূর। সম্প্রতি এই দুর্নীতি মামলাতেই জনপ্রিয় টলিউড অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তকে তলব করে ইডি (Enforcement Directorate)। লোকসভা ভোট সম্পন্ন হওয়ার ঠিক পরের দিন তথা গত ৫ জুন রেশন দুর্নীতি কাণ্ডে (Ration Distribution Scam) ঋতুপর্ণাকে (Rituparna Sengupta) হাজিরার নির্দেশ দিয়েছিল ED। সিজিও কমপ্লেক্সে উপস্থিত হতে বলা হয় তাঁকে। তবে সেবার কেন্দ্রীয় এজেন্সির ডাকে সাড়া দেননি টলি নায়িকা। পরে জানা যায়, ইমেল মারফৎ তিনি ED আধিকারিককে জানিয়েছেন, বিদেশে থাকার কারণে হাজিরা দিতে পারছেন না। এরপর ১৯ জুন ফের তাঁকে তলব করে কেন্দ্রীয় এজেন্সি। এবার শোনা যাচ্ছে, বুধবার তদন্তকারী সংস্থার মুখোমুখি হতে পারেন ঋতুপর্ণা। বুধবার তাঁকে সিজিও কমপ্লেক্সে দেখা করতে বলা হয়েছে বলে খবর। শোনা যাচ্ছে, আজ ED দফতরে উপস্থিত হতে পারেন অভিনেত্রী। সেই কারণে সেখানে বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। আরও পড়ুনঃ রক্তাক্ত কলকাতা, তৃণমূল কাউন্সিলরকে শুঁটিয়ে লাল করল দলেরই লোকেরা! উত্তেজনা এলাকায় জানা যাচ্ছে, ঋতুপর্ণা হাজিরা দিতে আসতে পারেন বলেই সিজিও কমপ্লেক্সের বাইরে নিরাপত্তার বেষ্টনী আঁটোসাঁটো করা হয়েছে। ED দফতরের সামনে মোতায়েন করা হয়েছে রাজ্য পুলিশের মহিলা র‍্যাফ এবং রাজ্য পুলিশের টিম। সেই সঙ্গেই ভেতরে CRPF রয়েছে বলে খবর। এখন প্রশ্ন হল, কেন ঋতুপর্ণাকে হাজিরা দিতে বলা হয়েছে? সূত্র মারফৎ জানা যাচ্ছে, রেশন দুর্নীতি মামলায় গ্রেফতার এক অভিজুক্তের সঙ্গে অভিনেত্রী আর্থিক লেনদেন হয়েছে। সেই কারণেই কেন্দ্রীয় এজেন্সির তরফ থেকে তাঁকে তলব করা হয়েছে। শোনা যাচ্ছে, আজ ED-র ডাকে সাড়া দিয়ে সিজিও কমপ্লেক্সে উপস্থিত হতে পারেন তিনি। এবার সত্যিই তেমনটা হবে কিনা তা জানা যাবে কিছুক্ষণ পর।

  • রক্তাক্ত কলকাতা, তৃণমূল কাউন্সিলরকে শুঁটিয়ে লাল করল দলেরই লোকেরা! উত্তেজনা এলাকায়

    বাংলা হান্ট ডেস্কঃ লোকসভা ভোটের পর রাজ্যে ফের ভোটের দামামা। আগামী ১০ জুলাই বাংলার ৪টি বিধানসভা আসনে উপনির্বাচন রয়েছে। তবে তার আগে শিরোনামে তৃণমূলের (Trinamool Congress) গোষ্ঠীকোন্দল। দিন কয়েক আগে কসবায় জোড়াফুল শিবিরের অর্ন্তদ্বন্দ্বের খবর সামনে এসেছিল। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই এবার শিরোনামে উঠে এল পাটুলি। কলকাতা পুরসভার (Kolkata Municipal Corporation) ১১০ নং ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর (TMC Councilor) স্বরাজ মণ্ডলকে মারধর করার অভিযোগ উঠেছে দলেরই কর্মীদের বিরুদ্ধে। স্বরাজের অভিযোগ, মঙ্গলবার রাত ৯টা নাগাদ পাটুলিতে নিজের কার্যালয়ে বসতে যান তিনি। সেই সময়ই বাঁধে বিপত্তি! দলের বেশ কিছু কর্মী তাঁকে সেখানে বসতে বাধা দিতেই বচসা শুরু হয়। পাটুলির মেলার মাঠে কার্যালয় রয়েছে স্বরাজের। সেখানে প্রত্যেক সপ্তাহে একদিন করে স্থানীয় বিধায়ক দেবব্রত মজুমদার বসেন। বাকি দিনগুলিতে স্বরাজই থাকেন। তাঁর দাবি, অন্যান্য দিনের মতো মঙ্গলবারও নিজের কার্যালয়ে বসতে যান তিনি। তখন নাকি দলের কিছু কর্মী তাঁকে বলে, বিধায়কের চেয়ারে বসা যাবে না। আরও পড়ুনঃ দলবিরোধী কাজের অভিযোগ! হেভিওয়েট প্রার্থীকে বহিষ্কার করল বঙ্গ BJP, নাম ফাঁস হতেই তোলপাড়! এই নিয়ে প্রথমে তর্কাতর্কি হয়। এরপর তা গড়ায় হাতাহাতি অবধি। এসবের মাঝেই কয়েকজন সপাটে স্বরাজের মুখে ঘুসি মারেন। এতে তাঁর মুখ ফেটে যায় বলে অভিযোগ। শরীরের আরও বেশ কিছু জায়গায় চোট লেগেছে বলে খবর। এরপর হাসপাতালে গিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা করুয়ে সোজা পাটুলি থানায় গিয়ে অভিযোগ দায়ের করেন TMC কাউন্সিলর। আহত স্বরাজের দাবি, এই ঘটনার নেপথ্যে রয়েছে ১০৪ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর তারকেশ্বর চক্রবর্তীর অনুগামীরা। পাল্টা তারকেশ্বরের দাবি, এই কোনও ঘটনা ঘটেছে বলে তিনি জানেন না। এদিকে স্থানীয় বিধায়ক দেবব্রত বর্তমানে শহরে নেই। তবে তিনি ফিরে ঘটনাটির বিষয়ে খোঁজ নেবেন বলে জানিয়েছেন। উল্লেখ্য, ২০২৪ লোকসভা নির্বাচনের কয়েকদিন আগেও স্বরাজকে মারধর করার অভিযোগ উঠেছিল। সেই সময়ও বিরুদ্ধ গোষ্ঠীর কর্মীদের দিকে আঙুল তোলা হয়। রাজ্যের মন্ত্রী তথা TMC নেতা অরূপ বিশ্বাস তখন পরিস্থিতি সামাল দেন। তবে ভোট মিটতেই ফের শিরোনামে উঠে এল জোড়াফুল শিবিরের গোষ্ঠীকোন্দল।

  • ছাতা রেডি রাখুন! ২ ঘণ্টার মধ্যে ঝেঁপে বৃষ্টি আসছে দক্ষিণবঙ্গের এই ৩ জেলায়, রইল তাজা আপডেট

    বাংলা হান্ট ডেস্কঃ সকাল থেকেই আকাশের মুখ ভার। দক্ষিণবঙ্গের (South Bengal) বেশ কিছু জেলায় বিক্ষিপ্ত অল্পবিস্তর হয়েছে। বেলা গড়াতেই এবার সামনে এল বড় আপডেট। তিন জেলায় ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি আসছে, পূর্বাভাস (Weather Update) দিল আবহাওয়া দফতর। গত কয়েকদিন ধরে উত্তরবঙ্গে টানা বৃষ্টি হচ্ছে। হাওয়া অফিসের তরফ থেকে আগেই জানানো হয়েছিল, বুধবার থেকে দক্ষিণবঙ্গ জুড়ে বৃষ্টি (Rain) শুরু হবে। সকাল হতেই দেখা যায়, আকাশে মেঘের আনাগোনা। হুগলির কিছু কিছু এলাকায় যেমন সামান্য বৃষ্টি হয়েছে। এবার হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস, আগামী ২ থেকে ৩ ঘণ্টায় দক্ষিণবঙ্গের তিন জেলায় বজ্রবিদ্যুৎ সহ ঝড়বৃষ্টির সম্ভাবনা (Rainfall Alert) রয়েছে। ইতিমধ্যেই সতর্কতা জারি করেছে আবহাওয়া দফতর। কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই মালদহ, মুর্শিদাবাদ এবং নদিয়ায় ঝড় বৃষ্টির সতর্কতা জারি করা হয়েছে। আরও পড়ুনঃ বুধেই স্বস্তির বৃষ্টি শুরু দক্ষিণবঙ্গে! আজ ভিজবে কোন কোন জেলা? রইল আবহাওয়ার মেগা আপডেট আলিপুর আবহাওয়া দফতরের (Alipore Weather Office) তরফ থেকে জানানো হয়েছে, এই তিন জেলায় বজ্রবিদ্যুৎ সহ হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। সেই সঙ্গেই বইবে ৩০ থেকে ৪০ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া। সেই সঙ্গেই বর্ষা নিয়েও বড় আপডেট দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, দক্ষিণবঙ্গে বর্ষার অনুকূল পরিবেশ তৈরি হচ্ছে। আবহাওয়াবিদদের অনুমান, এই সপ্তাহের মধ্যেই দক্ষিণবঙ্গে বর্ষার প্রবেশ করতে পারে। বুধবার সকাল থেকেই গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে মেঘলা আকাশ। দক্ষিণবঙ্গের প্রত্যেক জেলায় বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে। হাওয়া অফিসের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, পশ্চিমের জেলাগুলিতে বেশি বৃষ্টি হবে। সেই সঙ্গেই বজ্রপাতের আশঙ্কাও রয়েছে। তবে বৃষ্টি হলেও দক্ষিণবঙ্গের প্রত্যেক জেলায় এবং গরম এবং অস্বস্তিকর আবহাওয়া বজায় থাকবে বলে জানানো হয়েছে। সকাল থেকে গরমের অস্বস্তি থাকবে। তবে বেলা যত গড়াবে, ততই বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা বাড়বে। পুরুলিয়া, পশ্চিম মেদিনীপুর, বাঁকুড়া, ঝাড়গ্রাম, পশ্চিম বর্ধমানের মতো পশ্চিমের জেলাগুলিতে গরম এবং অস্বস্তি একটু বেশি অনুভব হবে বলে জানানো হয়েছে। এদিকে উত্তরবঙ্গের কথা বলা হলে, গত কয়েকদিন ধরে এখানে টানা বৃষ্টি হচ্ছে। যে কারণে কার্যত বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। দার্জিলিং এবং কালিম্পংয়ে ফের একবার কমলা সতর্কতা জারি করা হয়েছে। অন্যদিকে মালদা, উত্তর দিনাজপুর এবং দক্ষিণ দিনাজপুরে জারি করা হয়েছে হলুদ সতর্কতা। বৃষ্টিপাতের সঙ্গে এখানে ঝোড়ো হাওয়াও বইতে পারে।

24X7 Live News TV/Web Portal/Live App/Daily E News Paper Multinational & Multilingual Live News & Latest Updates, International to National News, Political to Social, Technical & business, Sports News, Local to Global impartial news coverage. Stay updated with us 24X7 Live News TV! Impartial, Intellectual, International, IOB News Network stay updated

24X7 লাইভ নিউজ টিভি/ওয়েব পোর্টাল/লাইভ অ্যাপ/ডেইলি ই নিউজ পেপার বহুজাতিক এবং বহুভাষিক লাইভ নিউজ এবং সর্বশেষ আপডেট, আন্তর্জাতিক থেকে জাতীয় সংবাদ, রাজনৈতিক থেকে সামাজিক, প্রযুক্তিগত ও ব্যবসায়িক, ক্রীড়া সংবাদ, স্থানীয় থেকে বিশ্বব্যাপী নিরপেক্ষ সংবাদ কভারেজ। আমাদের সাথে আপডেট থাকুন 24X7 লাইভ নিউজ টিভি! নিরপেক্ষ, বুদ্ধিজীবী, আন্তর্জাতিক, আইওবি নিউজ নেটওয়ার্ক আপডেট থাকুন