February 19, 2024

Bangla

Live News & Updates From West Bengal পশ্চিমবঙ্গ থেকে লাইভ খবর ও আপডেট

  • ‘আমি কি পারি না গদ্দারদের গ্রেফতার করতে? আসলে একটু…’, ভরা সভা থেকে কাকে টার্গেট মমতার?

    বাংলা হান্ট ডেস্কঃ ২০২২ থেকে দুর্নীতির দায়ে গ্রেফতার হয়েছেন তৃণমূলের একের পর এক হেভিওয়েট মন্ত্রী, বিধায়ক, নেতা। জেলবন্দি রাজ্যের দুই প্রাক্তন মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়, জ্যোতিপ্ৰিয় মল্লিক থেকে শুরু করে হেভিওয়েট তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডল। ওদিকে সম্প্রতি গ্রেফতার হয়েছেন আরাবুল ইসলাম, সন্দেশখালির শিবপ্রসাদ হাজরা, উত্তম সর্দাররা। এই আবহেই এবার কেষ্ট গড় বীরভূমে দাঁড়িয়ে ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য করলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। ঠিক কী বললেন মুখ্যমন্ত্রী? রবিবার সিউড়িতে সভা করেন মমতা। তথাকথিত সেই প্রশাসনিক সভা থেকেই প্রকাশ্যে হুঁশিয়ারি দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “আমি কি পারি না গদ্দারদের গ্রেফতার করতে? আমি একটু সময় দিচ্ছি। সুতো ছাড়ছি।” জোর গলায় মমতা বলেন, “গদ্দারদের সব চুরি, দুর্নীতির মামলা…সবাইকে বলে চোর। ওরা চোরেদের ঠাকুরদা। মায়েরা বলেন, শূন্য কলসি বড্ড বাজে বেশি। ওরা হচ্ছে তাই। দিল্লির দয়ায় রাজনীতি করে। দিল্লি হ্যাঁ বললে ধিতাং ধিতাং নৃত্য, না বললে মন খারাপ। এরা বাংলাকে ভালবাসে না।” এদিকে বীরভূম থেকে অনুব্রতর পাশে দাঁড়িয়ে মমতা বলেন, “এতদিন ধরে কেষ্টকে জেলে আটকে রেখেছে। কিন্তু সাধারণ মানুষের মন থেকে ওকে দূরে সরাতে পারেনি। যদি কেষ্টর বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ থাকে সেই একই অভিযোগ আপনাদের কতজন নেতার বিরুদ্ধে রয়েছে? মমতার প্রশ্ন, “সেসব নিয়ে আজ পর্যন্ত কী কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে? আমি কি পারি না গদ্দারদের গ্রেফতার করতে? একটু সময় দিচ্ছি। সুতো ছাড়ছি’। আরও পড়ুন: ‘ইয়ং জেনারেশন ওর কথা বলছে’, ‘জেলবন্দি করলেও কেষ্ট মনেই আছে’, বীরভূমে দাঁড়িয়ে অকপট মমতা এদিন কারও নাম না নিলেও লোকসভা ভোটের আগে মমতা বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীকে নিশানা করেছেন বলেই মত রাজনৈতিক মহলের। কারণ বর্তমান বিজেপি বিধায়ক তৃণমূলের প্রাক্তন নেতা শুভেন্দু অধিকারীকে এর আগে একাধিক বার ‘বিশ্বাসঘাতক’, ‘গদ্দার’ বলে উল্লেখ করেছে তৃণমূল।

  • ‘ইয়ং জেনারেশন ওর কথা বলছে’, ‘জেলবন্দি করলেও কেষ্ট মনেই আছে’, বীরভূমে দাঁড়িয়ে অকপট মমতা

    বাংলা হান্ট ডেস্কঃ দোরগোড়ায় লোকসভা নির্বাচন (Loksabha Election)। তার আগে রবিবার বীরভূমের (Birbhum) সিউড়িতে সভা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। যেখানে বীরভূম বলতেই মনে পড়ে একসময়ের দাপুটে তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডলের (Anubrata Mondal) কথা, সেখানে সেই বীরভূমে দাঁড়িয়ে মমতার মুখে কেষ্ট প্রসঙ্গ উঠবে এমনটাই মনে করা হচ্ছিল। আর ঘটলও ঠিক তাই। জেলবন্দি অনুব্রত যে মনেই রয়ে গিয়েছে প্রকাশ্য সভায় দাঁড়িয়ে বুক ফুলিয়ে সেই কথাই বললেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এক বছরেরও বেশি সময় ধরে গরু পাচার মামলায় জেলবন্দি তৃণমূলের বীরভূম জেলা প্রাক্তন সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল (Anubrata Mondal)। ২০২২ সালের অগাস্ট মাসে গ্রেফতার হন অনুব্রত মণ্ডল। তারপর থেকে অতিবাহিত হয়েছে অনেকটা সময়। বাংলা ছাড়িয়ে বর্তমানে ‘বীরভূমের বাঘ’ এর ঠিকানা হয়েছে দিল্লির তিহাড়। ইডির হাতে গ্রেফতার হয়েছে কেষ্ট কন্যা সুকন্যা মণ্ডলও। সেও রয়েছে তিহাড়েই। বীরভূমের রাজনীতিতে অনুব্রতের অনুপস্থিতি নিয়েই এবার মুখ খুললেন মমতা। কেষ্টর প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়ে এদিন মমতা বলেন, “নানা চক্রান্ত চলছে। বীরভূমেও চক্রান্ত চলছে। এতদিন ধরে কেষ্টকে জেলে আটকে রেখেছে। কিন্তু সাধারণ মানুষের মন থেকে ওকে দূরে সরাতে পারেনি। আমি আসতে আসতে দেখছিলাম, ইয়ং জেনারেশন ওর কথা বলছে। আমি তো কাউকে শিখিয়ে দিইনি। আসলে কেষ্ট কাজ করেছে, ও কাজ করতে জানে।” বিরোধীদের দিকে আঙ্গুল তুলে মমতা আরও বলেন, “যদি কেষ্টর বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ থেকেও থাকে সেই একই অভিযোগ আপনাদের কতজন নেতার বিরুদ্ধে রয়েছে? মমতার প্রশ্ন, “সেসব নিয়ে আজ পর্যন্ত কী কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে? কটা অ্যাকশন নেওয়া হয়েছে? শুধু বিএসএফ-কে লেলিয়ে দিয়েছেন।” আরও পড়ুন: কত জমি খেয়েছে শিবু-উত্তমেরা? হিসেব জানতে এবার সন্দেশখালিতে ভূমি দফতরের ‘বিশেষ’ ক্যাম্প প্রসঙ্গত, এর আগেও বহুবার জেলবন্দি কেষ্টর পাশে থাকার বার্তা দিয়েছেন মমতা, ফিরহাদ, শতাব্দী, অভিষেক থেকে শুরু করে দলের একাধিক নেতা। আর এবারেও কেষ্ট গড়ে দাঁড়িয়ে দলের সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখে অনুব্রত মণ্ডলের পাশে থাকার বার্তা।

  • পর্যটকদের জন্য সুখবর! এবার আরও সহজে পৌঁছে যান উত্তরবঙ্গ, কেটে গেল দীর্ঘদিনের জট

    বাংলা হান্ট ডেস্ক: ভ্রমণপিপাসুদের কাছে উত্তরবঙ্গ (North Bengal) অন্যতম পছন্দের ট্রাভেল ডেস্টিনেশন হিসেবে বিবেচিত হয়। শুধু তাই নয়, সেখানকার জনপ্রিয় পর্যটনস্থলগুলির পাশাপাশি বর্তমানে ভিড় বাড়ছে অফবিট ডেস্টিনেশনগুলিতেও। আর সেই কারণেই বছরের প্রতিটি সময়েই পর্যটকদের ভিড় পরিলক্ষিত হয় উত্তরবঙ্গে। এদিকে, এবার একটি বড় আপডেট সামনে এসেছে। এই প্রসঙ্গে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী জানা গিয়েছে যে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা করেছেন। যার জেরে আগামী দিনে উত্তরবঙ্গ ভ্রমণ করা আরও সহজ হয়ে উঠবে। কারণ, এবার একসঙ্গে জুড়তে চলেছে ডুয়ার্স থেকে শুরু করে শিলিগুড়ি এবং গজলডোবা। তাই, এই জনপ্রিয় স্পটগুলিতে বৃদ্ধি পাবে পর্যটকদের সংখ্যাও। পাশাপাশি, লাভবান হবেন স্থানীয় বাসিন্দারাও। এই প্রসঙ্গে জানিয়ে রাখি যে, এবার আসলে খুব শীঘ্রই মুখ্যমন্ত্রীর একটি স্বপ্নের প্রকল্প বাস্তবায়িত হতে চলেছে। উল্লেখ্য যে, তৃণমূল সরকার ক্ষমতায় আসার পরে ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গজলডোবাতে “মেগা টুরিজম হাব”-এর ঘোষণা করেন। এমতাবস্থায়, কয়েক হাজার কোটি টাকার ওই প্রকল্পের অনেকটাই বাস্তবায়িত হয়ে যাওয়ার পাশাপাশি নেওয়া হয়েছে আরও গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। যার মধ্যে রয়েছে “ভোরের আলো” কটেজ, যুবকল্যাণ দফতরের আবাসন এবং পর্যটকদের বিভিন্ন ধরণের মনোরঞ্জনের ব্যবস্থাও। এছাড়াও, সবথেকে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, ওই সময়ে পর্যটকদের হয়রানি কমাতে শিলিগুড়ি থেকে সরাসরি গজলডোবা অবধি রাস্তার ঘোষণাও করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। এমতাবস্থায়, জানা গিয়েছে যে, এবার ওই রাস্তার জট কাটতে শুরু করেছে। কারণ প্রায় দেড় বছরের মতো বন্ধ থাকা দু’টি সেতুর সংস্কারের জন্য দরপত্র বা টেন্ডার হয়েছে। পাশাপাশি, সেতু দুটির সংস্কারের কাজ শেষ হলে, নতুন উড়ালপুলটিও ফের চালু করা হবে বলে আশা করা হচ্ছে। আরও পড়ুন: পঞ্চভূতে বিলীন হলেন জৈন সমাজের “বর্তমান মহাবীর”! শোকের ছায়া সমগ্ৰ দেশজুড়ে, স্মৃতিচারণ প্রধানমন্ত্রীর জানিয়ে রাখি যে, বিগত প্রায় দেড় বছর ধরে বছর বিভিন্ন প্রশাসনিক প্রক্রিয়া এবং টালবাহানার পরে সম্প্রতি পূর্ত দফতর প্রায় ১৪ কোটি টাকার টেন্ডার সামনে এনেছে। এমন পরিস্থিতিতে, চলতি মাসের শেষেই টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলে আগামী মাসে অর্থাৎ মার্চ থেকেই এই কাজ শুরুর সম্ভাবনা রয়েছে। পাশাপাশি, সামগ্রিক বিষয়ের পরিপ্রেক্ষিতে পূর্ত দফতরের জলপাইগুড়ি হাইওয়ে ডিভিশনের সুপারিন্টেন্ডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার দীপক সিংহ জানিয়েছেন, ‘‘ইতিমধ্যেই টেন্ডার হয়ে গিয়েছে। আশা করছি মার্চ থেকে কাজ শুরু হবে। দু’টি সেতুর ওপরের অংশ নতুন করে তৈরি হবে।’’ তিনি আরও জানান যে, ক্ষতিগ্রস্ত সেতুগুলি সেচ দফতরের অধীনে থাকলেও সরকারি প্রক্রিয়ায় সেগুলি পূর্ত দফতরের হাতে এসেছে। তারপরে, সেতুগুলির সার্ভে করা হলে সেই রিপোর্ট কলকাতায় গিয়ে অনুমোদনের পরে টাকা বরাদ্দ করায় টেন্ডার হয়েছে। আর এই বিষয়টিতেই লেগে গিয়েছে বেশকিছুটা সময়। আরও পড়ুন: “খতম, টাটা….বাই, বাই”, ভারতের সাথে পাঙ্গা নিয়ে দেউলিয়া মলদ্বীপ? প্রকাশ্যে এল বড় তথ্য মিটবে দীর্ঘদিনের ভোগান্তি: এদিকে স্বাভাবিকভাবেই এতদিন ধরে এই সেতু বন্ধ থাকায় সাধারণ যাত্রী থেকে শুরু করে পর্যটকদের দীর্ঘ ভোগান্তির সম্মুখীন হতে হয়। বর্তমানে প্রায় ১১ কিলোমিটার ঘুরপথে গজলডোবা পৌঁছতে হচ্ছে। পাশাপাশি সেখান থেকে ডুয়ার্স যেতেও লাগছে বেশি সময়। এদিকে, ঘুরপথের রাস্তার প্রায় আট কিলোমিটার জুড়ে খানাখন্দ রয়েছে। এমনকি আমবাড়ি রেলগেটে দফায় দফায় আটকে থাকছে গাড়ি। যার ফলে চরম অসুবিধের সম্মুখীন হচ্ছেন স্থানীয় বাসিন্দা থেকে শুরু করে পর্যটকরা। তবে, এবার এই বড় জট কেটে যাওয়ায় দীর্ঘ ভোগান্তি শেষ হবে বলেই আশা প্রকাশ করেছেন সকলে।

  • কত জমি খেয়েছে শিবু-উত্তমেরা? হিসেব জানতে এবার সন্দেশখালিতে ভূমি দফতরের ‘বিশেষ’ ক্যাম্প

    বাংলা হান্ট ডেস্কঃ সন্দেশখালি (Sandeshkhali) নিয়ে এবার নড়েচড়ে বসল রাজ্য সরকার। স্থানীয় প্রভাবশালী তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহান এবং তার সঙ্গীদের বিরুদ্ধে জমে থাকা জমি দুর্নীতির (land corruption allegation) অভিযোগের হিসেব-নিকেশ জানতে এ বার শিবির বসালো রাজ্য ভূমি ও ভূমি রাজস্ব দফতর। সূত্রের খবর, উত্তর ২৪ পরগনার সন্দেশখালির দুটি ব্লক মিলিয়ে মোট সাতটি শিবির করা হয়েছে। রবিবার থেকে জমি লিজ় এবং পাট্টা সংক্রান্ত অভিযোগ শুনতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি দিয়ে শিবিরের আয়জন করা হয়েছে সন্দেশখালিতে। হোর্ডিং-এ বড়বড় করে লেখা রয়েছে, ‘পরিবর্ধিত সমস্যা সমাধান জনসংযোগ।’ সন্দেশখালি-১ এবং সন্দেশখালি-২ ব্লকে ভূমি ও ভূমি রাজস্ব দফতর আয়োজিত সেই শিবির গুলিতে নিজেদের সমস্যা, অভিযোগ জানাতে রীতিমতো ঢল নেমেছে সাধারণ মানুষের। ক্যাম্পে ভীড় জমানো মানুষদের জমি এবং পাট্টা সংক্রান্ত অভিযোগ শুনে তা যথাযতভাবে খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সন্দেশখালির তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহান ও তার সঙ্গী উত্তর সর্দার ও শিবু হাজরাদের বিরুদ্ধে ক্ষমতা বলে বহু মানুষের জমি কেড়ে নেওয়ার অভিযোগ সামনে এসেছে। জমি কেড়ে নিয়ে ভেড়ি করা এবং পাট্টা না দেওয়ার মত অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছেন সন্দেশখালির মানুষেরা। লোকসভা ভোটের আগে এই সমস্ত অভিযোগ খতিয়ে দেখতেই আবার চালু বিশেষ ক্যাম্প। এর আগে মঙ্গলবারই রাজ্যের সেচমন্ত্রী পার্থ ভৌমিক (Partha Bhowmik) বলেছিলেন, গ্রামবাসীদের মধ্যে অনেকের মাছের ভেড়ি লিজ়ে নিয়ে টাকা না দেওয়ার মত অভিযোগ উঠেছে। সেই সমস্ত অভিযোগ দল সমাধান করে দেবে। তিনি বলেন,” লিজ়ের টাকা চাষের ভেড়ির টাকা না দেওয়া, বহদিন ধরে গ্রামবাসীকে প্রতারণা করার মত অভিযোগ সামনে এসেছে। ঠকে যাওয়া সাধারণ মানুষদের টাকা ফেরানোর ব্যবস্থা করবে তৃণমূল।’’ এখনও নেভেনি সন্দেশখালির আগুন। তার আগে রবিবারই উত্তপ্ত সন্দেশখালির পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে ঘটনাস্থলে যাচ্ছেন তৃণমূলের দুই মন্ত্রী, সুজিত বসু (Sujit Bose) এবং পার্থ ভৌমিক। সেখানে স্থানীয় তৃণমূল (TMC) নেতৃত্বের সঙ্গে বৈঠক মত হতে পারে বলে জানা যাচ্ছে। গত তিন সপ্তাহ ধরে বাংলার হটস্পট সন্দেশখালি। স্থানীয় এই তৃণমূল নেতাদের বিরুদ্ধে লাগাতার অত্যাচারের অভিযোগ তুলে রাস্তায় নেমে পড়েন সন্দেশখালির মহিলারা। তৃণমূল নেতা শাহজাহান শেখ এবং তার দুই ঘনিষ্ঠ নেতা শিবু হাজরা আর উত্তমের বিরুদ্ধে অত্যাচার, নির্যাতনের অভিযোগে জ্বলে ওঠে গোটা এলাকা। ইতিমধ্যেই পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছেন উত্তম ও শিবু। তবে এখনও অধরা শেখ শাহজাহান। আরও পড়ুন: এবার রচনার ‘দিদি নম্বর ১’ এ মমতা, সকলকে চমকে এই প্রথমবার রিয়ালিটি শো-তে মুখ্যমন্ত্রী এদিকে শনিবার সন্দেশখালিকাণ্ডে গণধর্ষণের (Gangrape Charges) ধারা যুক্ত করেছে পুলিশ। সন্দেশখালি ২ নম্বর ব্লকের সভাপতি শিবু হাজরা ও জেলা পরিষদের সদস্য উত্তম সর্দারের বিরুদ্ধে গণধর্ষণ খুনের চেষ্টার ধারায় মামলা রজু।

  • এবার রচনার ‘দিদি নম্বর ১’ এ মমতা, সকলকে চমকে এই প্রথমবার রিয়ালিটি শো-তে মুখ্যমন্ত্রী

    বাংলা হান্ট ডেস্কঃ অভিনেত্রী রচনা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শো ‘দিদি নম্বর ১’ (Didi no 1) বহু বছর থেকে বাংলায় জনপ্রিয়তার শীর্ষে। সামনেই লোকসভা নির্বাচন। তার আগে গত মাসে নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যয়ের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন অনুষ্ঠানের সঞ্চালিকা রচনা বন্দ্যোপাধ্যায় (Rachana Banerjee)। সেই থেকেই কানাঘুষো শুরু হয়, যে এবার কী তবে রাজনীতির আঙিনায় রচনা! তবে সেই জল্পনা কাটিয়ে এখন শোনা যাচ্ছে অন্য খবর। টলি পাড়া সূত্রে জানা যাচ্ছে খবর রচনা দিদির মঞ্চে আসছেন বাংলার দিদি মমতা (CM Mamata in Didi no 1)। হ্যাঁ, ঠিকই শুনছেন। এবার দিদি নম্বর ১’-এর মঞ্চে হাজির হচ্ছেন স্বয়ং রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। এই প্রথমবার কোনও রিয়ালিটি শো-এ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তারই সাথে বাংলার দুই দিদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং রচনা বন্দ্যোপাধ্যায় এবার একই অনুষ্ঠানে মঞ্চ ভাগ করে নেবেন। জানা যাচ্ছে, আগামী ২১ ফেব্রুয়ারি ‘দিদি নম্বর ১’ এর সেটে পৌঁছাবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। হাওড়ার ডুমুরজলা স্টেডিয়ামে দিদি নম্বর ১-এর সেটে যাবেন মমতা। সেখানেই হবে মেগা পর্বের শ্যুটিং। সূত্রের খবর, জানুয়ারিতেই নবান্নে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে ‘দিদি নম্বর ১’ এর মঞ্চে আসার জন্য আমন্ত্রণ জানান রচনা। তার ডাকে সাড়া দিয়েই এবার রিয়ালিটিতে শো-তে হাজির হবেন মুখ্যমন্ত্রী। রচনার এই অনুষ্ঠানে সাধারণত নিজেদের বাস্তব জীবনের লড়াইয়ের গল্প তুলে ধরেন মহিলারা। থাকে মজাদার সব খেলাও। ওদিকে বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর জীবনযুদ্ধের কাহিনিও কোনও সিনেমার চাইতে কম নয়। মনে করা হচ্ছে নিজের জীবনের কঠিন সময়ের কিছু অভিজ্ঞতা সকলের সাথে ভাগ করে নেবেন মমতা। প্রথমবার কোনও রিয়ালিটি শো-এর আসরে মুখ্যমন্ত্রী। তাই তার নিরাপত্তার বিষয়টির দিকে বিশেষভাবে নজর দেওয়া হচ্ছে। এই নিয়ে আজ রবিবার রাজ্যের ডেকেছে রাজ্যের ডিরেক্টর সিকিউরিটি। যদিও রচনার অনুষ্ঠানে মমতা প্রতিযোগী হিসেবে নাকি অতিথি হিসেবে যাবেন তা এখনও জানা যায়নি। আরও পড়ুন: ‘ED কেন এখনও গ্রেফতার করেনি?’, তৃণমূলের শাহজাহানকে নিয়ে এবার পাল্টা রাজ্য পুলিশের ডিজি একেই বাংলার গৃহিণীদের কাছে বিশেষ পছন্দের অনুষ্ঠান এই দিদি নম্বর ১, তারপর আবার সকলকে চমকে দিয়ে খোদ মুখ্যমন্ত্রী হাজির হচ্ছেন সেখানে। তাই ২১ ফেব্রুয়ারি এই অনুষ্ঠানের দিকেই যে সবার নজর থাকবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। সামনেই লোকসভা নির্বাচন। তাই এই জনপ্রিয় নন-ফিকশন শো থেকে মমতা কী বার্তা দেন সেই দিকে নজর থাকবে বিরোধীদেরও।

  • ‘ED কেন এখনও গ্রেফতার করেনি?’, তৃণমূলের শাহজাহানকে নিয়ে এবার পাল্টা রাজ্য পুলিশের ডিজি

    বাংলা হান্ট ডেস্কঃ অবশেষে সন্দেশখালিতে মহিলা নির্যাতনের অভিযোগ মেনেছে পুলিশ। নেওয়া হয়েছে পদক্ষেপও। শনিবার সন্দেশখালিকাণ্ডে (Sandeshkhali) গণধর্ষণের (Gangrape Charges) ধারা যুক্ত করেছে পুলিশ। সন্দেশখালি ২ নম্বর ব্লকের সভাপতি শিবু হাজরা (Shibu Hazra) ও জেলা পরিষদের সদস্য উত্তম সর্দারের (Uttam Sardar) বিরুদ্ধে গণধর্ষণ খুনের চেষ্টার ধারায় মামলা রজু। পুলিশ সূত্রে খবর, গোপন জবানবন্দিতে এক মহিলা জানিয়েছেন, তৃণমূল নেতা শিবু ও উত্তমের বিরুদ্ধে মহিলা নির্যাতনের একাধিক অভিযোগ ছিল। বসিরহাট মহুকুমা আদালতে সেই মহিলার গোপন জবানবন্দি নেওয়া হয়। সন্দেশখালিকাণ্ডের ২০ নম্বর মামলায় এবার শিবু-উত্তমের বিরুদ্ধে তাই গণধর্ষণের ধারা যুক্ত করল পুলিশ। শনিবার সাংবাদিক বৈঠক করে একথা জানিয়েছেন রাজ্য পুলিশের ডিজি রাজীব কুমার (DG Rajeev Kumar)। সন্দেশখালির পরিস্থিতি বিচার করে ১৪৪ ধারা প্রত্যাহার করে নেওয়া হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন ডিজি। আশ্বাস দিয়ে তিনি আরও বলেন, কোনওরকম সমস্যা হলে স্থানীয়দের সরাসরি পুলিশের সাথে যোগাযোগ করতে। পুলিশ তৎক্ষণাৎ ব্যবস্থা নেবে। গত মাসে রেশন দুর্নীতি কাণ্ডে সন্দেশখালির তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহানের বাড়িতে তল্লাশিতে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছিল ইডি। সেই থেকেই সংবাদ শিরোনামে উঠে আসে সন্দেশখালি। তবে সেই মূল অভিযুক্ত শাহজাহানকেই এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। এবার শাহজাহানের (Shahjahan Sheikh) গ্রেফতারির প্রসঙ্গেও নিয়েও মুখ খুলল ডিজি। তার সাফ বক্তব্য, শাহজাহানের বিরুদ্ধে ইডি (ED) অভিযোগ দায়ের করেছে। তাহলে ইডি কেন তাকে এখনও গ্রেফতার করেনি? শাহজাহানের গ্রেফতারির দায়িত্ব ইডির বলে মন্তব্য করেন ডিজি রাজীব কুমার। তিনি আরও বলেন, মহিলা নির্যাতন, ধর্ষণের বিষয়ে পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের না হলেও ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে এক মহিলার গোপন জবানবন্দির ভিত্তিতে মামলা করা হল। পাশাপাশি ৬ ফেব্রুয়ারির আগে সন্দেশখালি নিয়ে কোনও অভিযোগই দায়ের হয়নি বলে দাবি করেন তিনি। জানা গিয়েছে এখনও পর্যন্ত সন্দেশখালি নিয়ে মোট ১৭ টি অভিযোগ দায়ের হয়েছে, যার মধ্যে ৯ শ্লীলতাহানির অভিযোগ। তবে এখনও পর্যন্ত সরাসরি প্রভাবশালী তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহানের বিরুদ্ধে সরাসরি কোনও অভিযোগ জমা পড়েনি বলেই জানা গিয়েছে। আরও পড়ুন: ‘এমন সুইট, কিউট প্রধানমন্ত্রী আমি আগে দেখিনি’, ‘একবারও বাজে শব্দ বলিনি’, মমতার কথায় থ সকলে প্রসঙ্গত, গত তিন সপ্তাহ ধরে বাংলার হটস্পট সন্দেশখালি। স্থানীয় এই তৃণমূল নেতাদের (TMC Leaders) বিরুদ্ধে লাগাতার অত্যাচারের অভিযোগ তুলে রাস্তায় নেমে পড়েন সন্দেশখালির মহিলারা। তৃণমূল নেতা শাহজাহান শেখ এবং তার দুই ঘনিষ্ঠ নেতা শিবু হাজরা আর উত্তমের বিরুদ্ধে অত্যাচার, নির্যাতনের ভিযোগে জ্বলে ওঠে গোটা এলাকা। ইতিমধ্যেই পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছেন উত্তম ও শিবু। তবে এখনও অধরা শেখ শাহজাহান। সেই শাহজাহান, যার পাশে দাঁড়িয়ে বিরোধীদের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

  • ‘এমন সুইট, কিউট প্রধানমন্ত্রী আমি আগে দেখিনি’, ‘একবারও বাজে শব্দ বলিনি’, মমতার কথায় থ সকলে

      বাংলা হান্ট ডেস্কঃ শনিবার সন্ধ‌্যায় ক্যালকাটা ক্লাবে সংবিধান সংক্রান্ত একটি বিতর্কসভায় অংশ নিয়েছিলেন মুখ‌্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। সেখানে বক্তব্য রাখতে গিয়েই কেন্দ্রের মোদী সরকারের বিরুদ্ধে খড়্গহস্ত তৃণমূল সুপ্রিমো। কেন্দ্রীয় এজেন্সিকে ব্যবহার করে গণতন্ত্রকে গুড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা চলছে বলে বিস্ফোরক অভিযোগ শোনা গেল মমতার গলায়। দেশের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো ধ্বংস করে দিয়েছে মোদী সরকার। মানুষের খাওয়া, পড়ার সিদ্ধান্ত নেওয়ার মত গণতান্ত্রিক অধিকার পর্যন্ত কেড়ে নেওয়া হচ্ছে। সবই একজন ঠিক করে দিচ্ছে। বিজেপি সরকারকে (BJP Government) জোড়ালো আক্রমণ মমতার। মমতার কথায়, এই ‘হিটলারতন্ত্র’, ‘স্ট্যালিনতন্ত্রের’ একদিন অবসান ঘটবেই। ‘ডান্ডা চালাচ্ছে। ন্যায় সংহিতা না কী করেছে! আমরা সকল জাতিকে ভালোবাসি। আমি তো সাতবারের এমপি। মোদী সরকারকে তুলোধোনা করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, সংবিধান এখন এজেন্সি চালাচ্ছে। চারিদিকে ভয়ঙ্কর ভয়ের বাতাবরণ সৃষ্টি করা হয়েছে। কেউ বললেই তো বাড়িতে ইডি চলে আসছে। এদিন মিডিয়ার ভূমিকা নিয়েও তীব্র কটাক্ষ করেন মমতা। বলেন, ‘মুডি মিডিয়া। ইডি আসছে মিডিয়াকে নিয়ে। একটা নির্দিষ্ট পার্টি মিডিয়া নিয়ন্ত্রণ করছে। মিডিয়া কেন সত্যিটা দেখায় না? কেন শাসকপক্ষের কাছে আত্মসমর্পণ করে?’ এরপর পুরোনো কথা মনে করে মমতা বলেন, ‘সারাজীবন অনেক সংগ্রাম করতে হয়েছে। সরকারে আসার পরেও আমি লড়াই চালিয়ে যাচ্ছি। সত্যিই জানি না এর সমাপ্তি কোথায়! ‘ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নাম না করেই প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত তাকে তুলোধনা করেন মুখ‌্যমন্ত্রী। মমতা এও বলেন, ‘ আমি অনেক প্রধানমন্ত্রীকে দেখেছি। রাজীব গান্ধীকে, মনমোহন সিং, নরসিমহা রাওয়ের মত প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কাজ করেছি। কিন্তু এমন কিউট, এমন সুইট প্রধানমন্ত্রীকে আগে দেখিনি। আমি সুইট, কিউট বলছি। কিন্তু একবারও বাজে শব্দ বলিনি।” আরও পড়ুন: হার্টে ৫০ শতাংশ ব্লকেজ, কিডনিতেও সমস্যা, বিচারকের কাছে চিকিৎসার জন্য কাতর আর্জি শঙ্করের কেন্দ্রকে তোপ দেগে মমতা আরও বলেন, ‘ইডি-সিবিআই তো আগে ছিলই। এখন আবার তাদের ছোট ভাই ক‌্যাগ এসেছে। এটা আর সহ‌্য করা যাচ্ছে না। আমাদের আরও লড়াই করতে হবে। ত্যাগ আরও বেশি করতে হবে। লড়াই চালিয়ে যেতেই হবে। নিশ্চয়ই একদিন এই স্বৈরাচার শেষ হবে। হিটলারি ব্যবস্থার একদিন অবসান ঘটবে।’ যদিও নিজের বক্তব্যে মমতা বারবার বলেন, “ব‌্যক্তিগতভাবে আমার কোনও রোষ নেই। আমি তাকে সম্মান করি তার চেয়ারের জন‌্য।”

  • হার্টে ৫০ শতাংশ ব্লকেজ, কিডনিতেও সমস্যা, বিচারকের কাছে চিকিৎসার জন্য কাতর আর্জি শঙ্করের

    বাংলা হান্ট ডেস্কঃ রেশন দুর্নীতি মামলায় গ্রেফতারির পর থেকে একাধিক বার নিজের অসুস্থতার বিষয়টি আদালতে তুলে ধরেছেন জ্যোতিপ্ৰিয় (Jyotipriya Mallick) ঘনিষ্ঠ তৃণমূল নেতা তথা উত্তর ২৪ পরগনার (North 24 Pargana) বনগাঁ পুরসভার প্রাক্তন চেয়ারম্যান শঙ্কর আঢ্য (Shankar Adhya)। এরই মধ্যে এবার জেলে সুচিকিৎসা হচ্ছে না বলে অভিযোগ করলেন তৃণমূল নেতা শঙ্কর। আদালতে শঙ্কর আঢ্যর অভিযোগ তার হার্টে ব্লকেজ রয়েছে কিন্তু জেলে তার প্রয়োজনীয় চিকিৎসা হচ্ছে না। শনিবার শঙ্কর আদালতে জানান, তার হৃদ্‌যন্ত্রের একটি ধমনীতে ৫০ শতাংশ ব্লকেজ রয়েছে। কিন্তু তার চিকিৎসার জন্য যে মেডিক্যাল টেস্টগুলি করানোর দরকার সেগুলি জেলে সম্ভব হচ্ছে না। বিচারককে শঙ্কর বলেন, ‘‘আমার কিডনির সমস্যা রয়েছে, হার্টেও ৫০ শতাংশ ব্লক রয়েছে। অথচ যে টেস্টগুলো করানোর দরকার সেগুলো জেলে করানো সম্ভব হচ্ছে না।’’ প্রসঙ্গত, এর আগের শুনানিতেও আদালতে শঙ্করের শারীরিক অবস্থা নিয়ে সওয়াল করেন তার আইনজীবী। গত ৩ ফেব্রুয়ারি বনগাঁ পুরসভার প্রাক্তন চেয়ারম্যান আদালতে বলেন, “জেলে আছি। জামিন চাইছি না। কিন্তু চিকিৎসা চাইছি। কিছু পরীক্ষা করার দরকার রয়েছে। আমি নিজের খরচেও করতে পারি।” জেলে ঠিকমতো পরিষেবা মিলছে না বলেও অভিযোগ করা হয়। সেদিনও শঙ্করের আবেদন গ্রাহ্য হয়নি। আর এদিনও তা হল না। আরও পড়ুন: মহিলা ধর্ষণের অভিযোগ! অবশেষে গ্রেফতার সন্দেশখালির শিবু হাজরা, কোথায় লুকিয়ে ছিলেন? শঙ্করের আর্জি শুনে বিচারক বলেন, ‘‘আপনার সমস্যা আগে জেলের চিকিৎসককে জানান। তাকে জানিয়েও যদি পর্যাপ্ত চিকিৎসা না হয় তখন আপনি আমাকে বলবেন।’’ শনিবার কলকাতার নগর দায়রা আদালতে শঙ্কর মামলার শুনানি ছিল। সেখানেই নিজের শারীরিক অসুস্থতার কথা তুলে ধরেন তিনি। তবে এদিনও শঙ্কর জামিনের আর্জি জানান নি।

  • মহিলা ধর্ষণের অভিযোগ! অবশেষে গ্রেফতার সন্দেশখালির শিবু হাজরা, কোথায় লুকিয়ে ছিলেন?

    বাংলা হান্ট ডেস্কঃ অভিযুক্ত তৃণমূল নেতাদের সাজার দাবিতে জ্বলছে সন্দেশখালি (Sandeshkhali)। এরই মধ্যেই ‘অসাধ্য সাধন’। পুলিশের হাতে গ্রেফতার শিবু হাজরা (Shibu Hazra)। শনিবার উত্তর ২৪ পরগনার ন্যাজাট থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে সন্দেশখালি ২ নম্বর ব্লকের সভাপতিকে। গতকালই সন্দেশখালিকাণ্ডে গণধর্ষণের (Gangrape Charges) ধারা যুক্ত করে পুলিশ। শিবু হাজরা ও জেলা পরিষদের সদস্য উত্তম সর্দারের (Uttam Sardar) বিরুদ্ধে গণধর্ষণের ধারায় হয় মামলা। যুক্ত করা হয়েছে খুনের চেষ্টার ধারাও। আর সেই দিন গ্রেফতার সন্দেশখালির ডন শিবু। শনিবার বিকেলে সাংবাদিক বৈঠক করেন রাজ্য পুলিশের ডিজি রাজীব কুমার। তার কিছুক্ষণের মধ্যেই পুলিশের জালে শিবু হাজরা। কিছুদিন আগেই সন্দেশখালির (Sandeshkhali Incident) মহিলাদের ওপর অত্যাচারের অভিযোগের পেছনে সিপিএম ও বিজেপির চক্রান্ত রয়েছে বলে গোপন ডেরা থেকে দাবি করেছিলেন শাহজাহান শেখের (Shahjahan Seikh) ‘ডানহাত’ শিবু হাজরা (shibu hazra)। শিবুর দাবি ছিল, সন্দেশখালির অশান্তির ঘটনার পেছনে হাত রয়েছে সিপিএমের নিরাপদ সর্দার এবং বিজেপির বিকাশ সিনহার। এলাকা (Sandeshkhali Incident) দখল করতেই বাম-বিজেপি একজোটহয়ে এই ঘটনা ঘটানো ঘটাচ্ছে বলেও অভিযোগ ছিল তার। এমনকি মহিলাদের নির্যাতনের অভিযোগ প্রসঙ্গে শিবুর দাবি ছিল, কখনও দলের মিটিং থাকলে খবর দেওয়া হত। আর কিছুই না। কোনও মহিলাকে রাতে ডাকা হয়নি। পাশাপাশি রাতে জোর করে কোনো মহিলাকে পার্টি অফিসে আটকে রাখার ঘটনাও হয়নি বলেও জোর গলায় দাবি করেছিলেন এলাকার এই দাপুটে তৃণমূল নেতা। শনিবার গ্রেফতারির দিনও শিবু দাবি করেন, তিনি অন্তরালে নয়, উন্নয়নের কাজে রয়েছেন। তিনি বলেন, ”বিভ্রান্তি সৃষ্টির চেষ্টা করছে বিরোধীরা। সাধারণ মানুষ সবটাই জানেন আমরা কীভাবে তাদের পাশে থাকি, উন্নয়নের কাজে যুক্ত থাকি।” এর আগেই উত্তমকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তবে অধরা ছিলেন শিবু। অবশেষে তাকে গ্রেফতার করা সম্ভব হল। প্রেক্ষাপট: গত তিন সপ্তাহ ধরে বাংলার হটস্পট সন্দেশখালি। স্থানীয় এই তৃণমূল নেতাদের (TMC Leaders) বিরুদ্ধে লাগাতার অত্যাচারের অভিযোগ তুলে রাস্তায় নেমে পড়েন সন্দেশখালির মহিলারা। চলতি মাসের শুরুতেও দফায় দফায় উত্তপ্ত হয়ে ওঠে সন্দেশখালি। বিস্ফোরক সব অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন গ্রামের মা-বোনেরা। তৃণমূল নেতা শাহজাহান শেখ এবং তার দুই ঘনিষ্ঠ নেতা শিবু হাজরা আর উত্তমের বিরুদ্ধে অত্যাচারের অভিযোগে জ্বলে ওঠে গোটা এলাকা। মহিলাদের অভিযোগ, শেখ শাহাজাহান, শিবু, উত্তমদের মত গুন্ডাদের অত্যাচারে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে তাদের। বিস্ফোরক অভিযোগ তুলে মহিলারা বলেন, ওরা মেয়েদের কোনও সম্মান দেয়নি। মেয়েদের শেষ করে ফেলেছে। রাত সাড়ে দশটার সময়ে মেয়েদেরকে উঠিয়ে আনত পার্টি অফিসে। শ্লীলতাহানি, ধর্ষণের মত মারাত্মক সব অভিযোগ তোলেন গ্রামের মহিলারা। এরপরই নারী নিগ্রহের অভিযোগকে কেন্দ্র করে আরও অশান্ত হয়ে ওঠে সন্দেশখালি। জারি রয়েছে ১৪৪ ধারা। প্রকাশ্যে তৃণমূল নেতাদের বিরুদ্ধে মহিলাদের ধর্ষণ, নির্যাতনের মত অভিযোগ উঠতেই আসরে নেমেছে বিরোধীরা। অভিযুক্তদের শাস্তি চেয়ে তৃণমূলের বিরুদ্ধে লাগাতার বিক্ষোভ দেখাচ্ছে সিপিএম, বিজেপি, কংগ্রেস। ওদিকে সবটাই রাম-বামের ষড়যন্ত্র বলে অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন খোদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূলের দাবি ছিল ধর্ষণের মত কোনও অভিযোগ নেই। আরও পড়ুন: টানা ৪৮ ঘণ্টা দক্ষিণবঙ্গ কাঁপাবে বৃষ্টি! কখন থেকে শুরু? এক নজরে আবহাওয়ার খবর এরই মধ্যে বসিরহাট মহুকুমা আদালতে এক মহিলার গোপন জবানবন্দি শিবু, উত্তমের বিরুদ্ধে গণধর্ষণের ধারা যুক্ত করে রাজ্য পুলিশ। ইতিমধ্যেই সন্দেশখালির মহিলা নির্যাতনের অভিযোগে সুপ্রিম কোর্টে দায়ের হয়েছে জনস্বার্থ মামলা।মহিলাদের কথা শুনতে সন্দেশখালি গিয়েছেন রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস, জাতীয় মহিলা সুরক্ষা কমিশন।

  • সামনেই টানা ৪ দিনের ছুটি! সামান্য বুদ্ধি খরচ করে বানিয়ে ফেলুন দারুন একটা ঘোরার প্ল্যান

    বাংলা হান্ট ডেস্কঃ সরকারি কর্মীদের পোয়া বারো। গত বছরে অতিরিক্ত অনেক ছুটি পেয়েছেন রাজ্য সরকারি কর্মীরা। এবার নতুন বছরেও কিন্তু তার ব্যাতিক্রম হচ্ছে না। এবারের সরস্বতী পুজোতেও (Saraswati Puja) টানা দুদিন ছুটি ছিল। যদিও সেই ছুটি সকলে পান নি। শুধুমাত্র স্কুল কলেজ সহ অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কর্মরতরা ছুটি পেয়েছেন। তবে এবার আর চিন্তা নেই। কারণ সামনেই রয়েছে লম্বা ছুটি (Holiday)। মাঘ কাটিয়ে বর্তমানে ফাল্গুন মাস। আর বসন্তের ফাল্গুন মানেই দোলযাত্রার পার্বণ৷ এই মাসে রঙের উৎসবে মেতে ওঠেন সকলে। তবে বাংলা ক্যালেন্ডার অনুযায়ী এ বছর ফাল্গুন নয় বরং দোলপূর্ণিমা পড়েছে চৈত্র মাসে। যদি ইংরেজি ক্যালেন্ডারে দেখা যায় তাহলে এ বছর দোলযাত্রা রয়েছে আগামী ২৫ মার্চ, সোমবার৷ অর্থাৎ সপ্তাহের শুরুতেই মিলছে ছুটি। প্রায় প্ৰতি বছরই দোলযাত্রার (Dolyatra & Holi 2024) পরেরদিন হয় হোলি। তবে এ বছর দোলপূর্ণিমা এবং হোলি পড়েছে এই একইদিনে৷ ২৫ মার্চ সোমবারই দোলের সাথে পালিত হবে হোলিও। তাই আর দেরী কেন? হাতে বেশিদিন সময় নেই। এখন থেকেই ছুটির প্ল্যান বানিয়ে ফেলুন। দোলপূর্ণিমার দিন সোমবার ছুটি থাকছে। আর তার আগের দুদিনও শনি-রবির ছুটি। আবার কেউ যদিও শুক্রবারও ছুটি ম্যানেজ করে নিতে পারেন তাহলে শুক্র থেকে সোম, উইকএন্ডে লম্বা ছুটি কাটিয়ে আসতে পারবেন অনায়াসেই। তাই বসে না থেকে চটজলদি বানিয়ে ফেলুন ঘোরার প্ল্যান। আরও পড়ুন: টানা ৪৮ ঘণ্টা দক্ষিণবঙ্গ কাঁপাবে বৃষ্টি! কখন থেকে শুরু? এক নজরে আবহাওয়ার খবর ২০২৪ সালের পুজোর ছুটি : মহালয়া – ২ অক্টোবর (বুধবার) দুর্গাপুজো – সপ্তমী – ১০ অক্টোবর (বৃহস্পতিবার) দুর্গাপুজো – অষ্টমী+ নবমী – ১১ অক্টোবর (শুক্রবার) দুর্গাপুজো – দশমী – ১২ অক্টোবর (শনিবার) লক্ষ্মীপুজো – ১৬ অক্টোবর (বুধবার) কালীপুজো – ৩১ অক্টোবর (বৃহস্পতিবার)

  • টানা ৪৮ ঘণ্টা দক্ষিণবঙ্গ কাঁপাবে বৃষ্টি! কখন থেকে শুরু? এক নজরে আবহাওয়ার খবর

    বাংলা হান্ট ডেস্ক: আবহাওয়ায় বসন্তের আমেজ। সকালের দিকে হালকা শিরশিরানি থাকলেও বেলা বাড়তেই তা উধাও। ওদিকে দিনের বেলায় সূর্য মামার লুকোচুরিতে ঘামতেও হচ্ছে বঙ্গবাসীকে। তবে আপাতত শীতের আমেজ হাওয়া হচ্ছেনা উত্তরবঙ্গ থেকে। পাশাপাশি রাজ্যের পশ্চিমের জেলাগুলিতেও আরও বেশ কিছুদিন হালকা ঠান্ডা থাকবে। আবহাওয়ার দপ্তরের (Alipore Weather Department) আপডেট অনুযায়ী, আজ তাপমাত্রা সামান্য কম থাকলেও মঙ্গলবার থেকেই মেজাজ চড়বে আবহাওয়ার। বাড়বে তাপমাত্রা। সোম-মঙ্গলবার থেকে ফের ঊর্ধ্বমুখী হবে পারদ। কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলি থেকে এ বছরের মত বিদায় নেবে শীত। তার আগে এক থেকে দুই ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা কমতে পারে সোমবার পর্যন্ত। আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস (Weather Office) অনুযায়ী, আজ কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের কোনো জেলাতেই বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। শুষ্ক আবহাওয়া বজায় থাকবে। তবে সোম ও মঙ্গলবার ফের ঝড়-বৃষ্টি হতে পারে দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলায়। বজ্রবিদ্যুৎ-সহ হালকা বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। হাওয়া অফিসের আপডেট, রবিবার বঙ্গোপসাগরে বিপরীত ঘূর্ণাবর্ত তৈরি হবে। তার প্রভাবেই প্রচুর পরিমাণে জলীয় বাষ্প ঢুকবে। যার জেরে মেঘলা আকাশ ও বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। সোমবার থেকে উপকূলের জেলাগুলিতে বৃষ্টির হতে পারে। বজ্রবিদ্যু-সহ বিক্ষিপ্ত বৃষ্টিরে ভিজতে পারে পূর্ব মেদিনীপুর, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার কিছু অংশে।‌ আরও পড়ুন: আজকের রাশিফল ১৮ ফেব্রুয়ারি, প্রতিটি কাজে সফল হবে এই তিন রাশি উত্তরবঙ্গের তাপমাত্রা: আবহাওয়া দপ্তর জানাচ্ছে শনিবার পশ্চিমী ঝঞ্ঝা ঢুকছে উত্তর-পশ্চিম ভারতে। এর প্রভাবে আগামী সপ্তাহের গোড়াতেই আবহাওয়ার পরিবর্তন হবে উত্তরবঙ্গে। চলতি সপ্তাহে বৃষ্টির সম্ভাবনা উত্তরবঙ্গের দার্জিলিং এ। আগামী দুদিন সকালে কুয়াশার সতর্কবার্তা মালদা উত্তর ও দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায়। আগামীকাল থেকে বাড়বে তাপমাত্রা।

  • রাজ্যের গাড়ির মালিকরা পেলেন বড় স্বস্তি! ট্যাক্স-এ মিলবে দুর্দান্ত ছাড়, বিধানসভায় পাশ হল বিল

    বাংলা হান্ট ডেস্ক: এবার গাড়ি করে (Transport Tax) মিলবে বড় ছাড়। ইতিমধ্যেই এই প্রসঙ্গে বিস্তারিত তথ্য সামনে এসেছে। জানা গিয়েছে যে, গত শনিবার এই বিষয়ে বিধানসভায় পাশ হয়েছে বিল। শুধু তাই নয়, ওইদিন বিধানসভায় দু’টি বিল পাশ করা হয়েছে বলেও জানা গিয়েছে। এমতাবস্থায়, ব্যক্তিগত গাড়ি থেকে শুরু করে বাণিজ্যিক গাড়ি উভয়ের ক্ষেত্রেই এই করে ছাড় থাকবে। পাশাপাশি, পরিবহণমন্ত্রী স্নেহাশিস চক্রবর্তী জানিয়েছেন যে, এই নতুন কর কাঠামোতে যদি ১০ শতাংশ আদায় করাও সম্ভব হয় সেক্ষেত্রে রাজ্য সরকারের ৯০০ থেকে ১,০০০ কোটি টাকা পর্যন্ত আয় সম্ভব। উল্লেখ্য যে, ইতিমধ্যেই পরিবহণ দফতরের তরফে ওয়েভার স্কিমও চালু করা হয়েছে। এই ব্যবস্থার মাধ্যমে গাড়ির মালিকরা বকেয়া কর জমা দিলে তাঁদের জরিমানা মকুব করা হচ্ছে। নতুন এই স্কিমের প্রতি অনেকেই আকৃষ্ট হয়েছেন। কারণ সামগ্রিকভাবে এই স্কিমের মাধ্যমে পরিবহণ দফতর থেকে শুরু করে সাধারণ গাড়ির মালিকরাও লাভবান হবেন। সূত্রের খবর অনুযায়ী জানা গিয়েছে যে, এই কর ছাড়ের বিষয়টি একাধিক ধাপের মাধ্যমে থাকবে। নতুন নিয়ম অনুযায়ী, বাণিজ্যিক গাড়ির ক্ষেত্রে একসঙ্গে ১০ বছরের কর জমা দিলে সেক্ষেত্রে ৪০ শতাংশ ছাড় মিলবে। পাশাপাশি, কেউ যদি এককালীন ৫ বছরের কর জমা দিয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে ৩০ শতাংশ ছাড় মিলবে বলেও জানা গিয়েছে। আরও পড়ুন: “খতম, টাটা….বাই, বাই”, ভারতের সাথে পাঙ্গা নিয়ে দেউলিয়া মলদ্বীপ? প্রকাশ্যে এল বড় তথ্য এছাড়াও, কেউ যদি যদি ৩ বছরের কর একসঙ্গে জমা দিতে চান সেক্ষেত্রে ছাড়ের পরিমাণ হল ১৫ শতাংশ। এদিকে, ব্যক্তিগত গাড়ির ক্ষেত্রেও একসঙ্গে ১০ বছরের কর দেওয়া হল কর ছাড় অনেকটাই হতে পারে। এমতাবস্থায়, এই ছাড়ের আকর্ষণেই অনেকেই এখন চাইবেন যে তাঁর গাড়ির কর যাতে আগে থেকেই মিটিয়ে দেওয়া যায়। আরও পড়ুন: ট্রেনের টিকিট কনফার্ম হলেই তারপর দিন টাকা, দুর্দান্ত পরিষেবা শুরু IRCTC-র, এইভাবে পেয়ে যান লাভ আর এর ফলেই বৃদ্ধি পেতে পারে সরকারের রাজস্ব। যার ফলে প্রত্যক্ষভাবে লাভবান হবে পরিবহণ দফতর। সেই সঙ্গে লাভ হবে গাড়ির মালিকদেরও। এদিকে, প্রথম দিকে ওয়েভার স্কিমেও ভালো সাড়া এসেছিল। তারপরই সামনে এল বড় ছাড়ের বিষয়টি। যার পরিপ্রেক্ষিতে পাস হল বিলও। যদিও, ওয়েভার স্কিমের ক্ষেত্রেও পরবর্তীকালে দেখা গিয়েছিল যে, একাধিক দামী গাড়ির মালিকরা গাড়ির কর ফাঁকি দিয়ে তা ঠিকঠাক মেটাচ্ছেন না। এমতাবস্থায়, এই নয়া ছাড়ের ঘোষণাটি তাঁদের এখন কিভাবে আকৃষ্ট করে সেটাই দেখার বিষয়।

  • চাকরিপ্রার্থীদের জন্য সুবর্ণ সুযোগ! প্রচুর শূন্যপদ গ্রুপ ডি’তে, মাস গেলে মিলবে ১৭ হাজার

    বাংলাহান্ট ডেস্ক : রাজ্যের চাকরিপ্রার্থীদের জন্য বড় সুখবর। ফের একবার নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি জারি করল পশ্চিমবঙ্গ সরকার। বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী রাজ্য সরকার নিয়োগ করতে চলেছে গ্রুপ ডি পদে। রাজ্য সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের পক্ষ থেকে রাজ্যের চাকরিপ্রার্থীদের জন্য বছরের শুরুতেই সুখবর নিয়ে আসা হল। এই পদে নূন্যতম যোগ্যতায় আবেদন করা যাবে। যেকোনো জেলার বাসিন্দারা এই পদে আবেদন করতে পারবেন। এই চাকরি সম্পর্কিত বিস্তারিত জানার জন্য মন দিয়ে পড়ুন এই প্রতিবেদন। পদের নাম : গ্রুপ ডি শিক্ষাগত যোগ্যতা : ন্যূনতম অষ্টম শ্রেণী পাস হতে হবে রাজ্য সরকারের গ্রুপ ডি পদে আবেদন করার জন্য। এছাড়াও আবেদনকারীকে অবশ্যই বাংলা ভাষা পড়তে ও লিখতে জানতে হবে। যোগ্যতা সম্পর্কিত বিস্তারিত জানার জন্য অফিশিয়াল ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করে নিন বিজ্ঞপ্তি। আরোও পড়ুন : বাবাকে মামা ডাকবে নাকি মাকে পিসি! ‘বরকে ভাইফোঁটা’ দিতেই পুরো কনফিউজড ময়না-অর্ণবের ছেলে বয়সসীমা : বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে যে সকল প্রার্থীরা এই পদে আবেদনে ইচ্ছুক তাদের ন্যূনতম বয়স ১৮ বছর হতে হবে। আবেদনের ক্ষেত্রে বয়সের সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৪০ বছর। এছাড়াও সংরক্ষিত শ্রেণীর প্রার্থীরা নিয়ম অনুযায়ী বয়সের ক্ষেত্রে ছাড় পাবেন। মাসিক বেতন : বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে এই পদে নির্বাচিত প্রার্থীদের প্রতি মাসে ১৭ হাজার টাকা বেতন দেওয়া হবে। আরোও পড়ুন : অযোধ্যায় একাধিক বিলাসবহুল হোটেল তৈরির উদ্যোগ, লড়াইয়ে সামিল ১২১ বছরের পুরনো সংস্থাও কোথায় নিয়োগ করা হচ্ছে : পশ্চিমবঙ্গের একটি জেলার আদালতে এই পদে নিয়োগ করা হবে। আবেদন পদ্ধতি : অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে গিয়ে প্রথমে প্রার্থীকে  নির্দিষ্ট ফর্ম ডাউনলোড করতে হবে। এরপর এই আবেদনপত্র সঠিকভাবে পূরণ করতে হবে। তারপর পাসপোর্ট সাইজের ছবি, স্বাক্ষর ও প্রয়োজনীয় নথি সহ আবেদনপত্র পাঠাতে হবে সংশ্লিষ্ট ঠিকানায়। আবেদনের শেষ তারিখ :  ৭ মার্চ ২০২৪ পর্যন্ত আবেদনপত্র জমা করা যাবে।

  • বাংলা থেকে অসম যাওয়া এখন আরোও সহজ! নয়া রুটে ছুটবে ট্রেন, দেখুন কোন কোন দিন চলবে

    বাংলাহান্ট ডেস্ক : যাত্রীদের সুবিধার জন্য ফের স্পেশাল ট্রেন চালানোর সিদ্ধান্ত নিল উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেল। আগামী জুলাই মাস পর্যন্ত চালানো হবে ট্রেন নং. ০২৫২৫ (কামাখ্যা-আনন্দ বিহার) ও ট্রেন নং. ০২৫২৬ (আনন্দ বিহার-কামাখ্যা)। ১৬ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৬ জুলাই, ২০২৪ পর্যন্ত  ট্রেন নং. ০২৫২৫ (কামাখ্যা-আনন্দ বিহার) স্পেশ্যাল চালানো হবে। প্রতি শুক্রবার রাত ১০টা ৪৫-এ কামাখ্যা থেকে এই ট্রেন রওনা দেবে। আনন্দ বিহার টার্মিনালে রবিবার সকাল ০৮ টা ৪০ মিনিটে পৌঁছাবে এই ট্রেন। ১৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৮ জুলাই, ২০২৪ পর্যন্ত ট্রেন নং. ০২৫২৬ (আনন্দ বিহার-কামাখ্যা) স্পেশ্যাল চালানো হবে। আনন্দ বিহার টার্মিনাল থেকে প্রত্যেক রবিবার ৫ টা২০ মিনিটে এই ট্রেনটি রওনা দেবে। আরোও পড়ুন : এবার লাইন, ফ্যান চলবে মূত্র থেকে তৈরি বিদ্যুতেই! বিশ্ববাসীকে অবাক করে দিল IIT বিজ্ঞানীরা মঙ্গলবারে ভোর ৩টা ৪০ মিনিটে এই ট্রেন কামাখ্যা পৌঁছাবে। এই দুটি ট্রেন স্টপেজ দেবে গোয়ালপাড়া টাউন, গৌরিপুর, নিউ কোচবিহার, নিউ জলপাইগুড়ি, কাটিহার, খাগাড়িয়া, বারাউনি, দানাপুর, পণ্ডিত দীনদয়াল উপাধ্যায় ও আলিগড় জংশনে। ১টি ফার্স্ট ক্লাস এসি, ২টি এসি ২ টিয়ার, ৫টি এসি ৩ টিয়ার, ৫ টি এসি ৩টিয়ার ইকোনোমি, ৪টি স্লিপার ক্লাস, ২টি জেনারেল সিটিং কোচ এবং একটি প্যান্ট্রি কার থাকতে চলেছে এই ট্রেন দুটিতে। আরোও পড়ুন : আগামী মাসেই নিউটাউনে নতুন ক্যাম্পাস, হবে বিপুল কর্মসংস্থান! বড় ঘোষণা ইনফোসিসের উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেল সিদ্ধান্ত নিয়েছে, ট্রেন নং. ১৩০৫৩/১৩০৫৪ (হাওড়া-রাধিকাপুর-হাওড়া) কুলিক এক্সপ্রেসের ভালুকা রোড স্টেশনে অতিরিক্ত দুমিনিট স্টপেজ দেওয়া হবে। মালদহ উত্তরের সাংসদ খগেন মুর্মু পরীক্ষামূলক ভিত্তিতে উদ্বোধন করেন এই স্টপেজের। কাটিহার ডিভিশনের আধিকারিক এবং বিশিষ্ট ব্যক্তিরা হাজির ছিলেন এই অনুষ্ঠানে। ট্রেন নং. ১৩০৫৩ (হাওড়া-রাধিকাপুর) কুলিক এক্সপ্রেস বিকাল ৪টা ২৫ মিনিটে এবার থেকে পৌঁছবে ভালুকা রোড স্টেশনে। রাধিকাপুর থেকে ছেড়ে সকাল ৭টা ২৯ মিনিটে ট্রেন নং. ১৩০৫৪ (রাধিকাপুর-হাওড়া) কুলিক এক্সপ্রেস ভালুকা রোড স্টেশন পৌঁছবে এবং ছাড়বে ৭টা ৩১ মিনিটে।

  • এক মহিলার গোপন জবানবন্দি! অবশেষে সন্দেশখালিকাণ্ডে শিবু, উত্তমের বিরুদ্ধে গণধর্ষণের ধারা পুলিশের

    বাংলা হান্ট ডেস্কঃ অবশেষে অ্যাকশনে পুলিশ। সন্দেশখালিকাণ্ডে (Sandeshkhali) এবার গণধর্ষণের (Gangrape Charges) ধারা যুক্ত করল পুলিশ। সন্দেশখালি ২ নম্বর ব্লকের সভাপতি শিবু হাজরা (Shibu Hazra) ও জেলা পরিষদের সদস্য উত্তম সর্দারের (Uttam Sardar) বিরুদ্ধে গণধর্ষণের ধারায় মামলা। যুক্ত করা হয়েছে খুনের চেষ্টার ধারাও। এমনটাই খবর পুলিশ সূত্রে। জানা গিয়েছে, গোপন জবানবন্দিতে এক মহিলা জানিয়েছেন, তৃণমূল নেতা শিবু ও উত্তমের বিরুদ্ধে অজস্র অভিযোগ ছিল। বসিরহাট মহুকুমা আদালতে সেই মহিলার গোপন জবানবন্দি নেওয়া হয়।সন্দেশখালিকাণ্ডের ২০ নম্বর মামলায় এবার শিবু-উত্তমের বিরুদ্ধে তাই গণধর্ষণের ধারা যুক্ত করল পুলিশ। এদিন উত্তম সর্দারকে বসিরহাট মহুকুমা আদালতে পেশ করা হয়। এদিন উত্তমের আট দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। প্রসঙ্গত, শেখ শাহজাহান-ঘনিষ্ঠ তৃণমূল নেতা উত্তম সর্দারকে (Suspended TMC leader Uttam Sardar) গত শনিবার গ্রেফতার করে পুলিশ। শনিবার দুপুরেই তাকে দল থেকে সাসপেন্ড করেছিল তৃণমূল। আর সেই দিনই তাকে সন্দেশখালি থানা এলাকা গ্রেফতার করে পুলিশ। তবে পুলিশের চোখে ফেরার শিবু হাজরা। প্রসঙ্গত, গত তিন সপ্তাহ ধরে বাংলার হটস্পট সন্দেশখালি। স্থানীয় এই তৃণমূল নেতাদের (TMC Leaders) বিরুদ্ধে লাগাতার অত্যাচারের অভিযোগ তুলে রাস্তায় নেমে পড়েন সন্দেশখালির মহিলারা। চলতি মাসের শুরুতেও দফায় দফায় উত্তপ্ত হয়ে ওঠে সন্দেশখালি। বিস্ফোরক সব অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন গ্রামের মা-বোনেরা। তৃণমূল নেতা শাহজাহান শেখ এবং তার দুই ঘনিষ্ঠ নেতা শিবু হাজরা আর উত্তমের বিরুদ্ধে অত্যাচারের অভিযোগে জ্বলে ওঠে গোটা এলাকা। মহিলাদের অভিযোগ, শেখ শাহাজাহান, শিবু, উত্তমদের মত গুন্ডাদের অত্যাচারে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে তাদের। বিস্ফোরক অভিযোগ তুলে মহিলারা বলেন, ওরা মেয়েদের কোনও সম্মান দেয়নি। মেয়েদের শেষ করে ফেলেছে। রাত সাড়ে দশটার সময়ে মেয়েদেরকে উঠিয়ে আনত পার্টি অফিসে। শ্লীলতাহানি, ধর্ষণের মত মারাত্মক সব অভিযোগ তোলেন গ্রামের মহিলারা। আরও পড়ুন: কালই হারিয়েছেন মন্ত্রিত্ব! গ্রেফতারির ১১৩ দিন পর এই প্রথম যা কাণ্ড ঘটালেন জ্যোতিপ্ৰিয়, শোরগোল এরপরই নারী নিগ্রহের অভিযোগকে কেন্দ্র করে আরও অশান্ত হয়ে ওঠে সন্দেশখালি। জারি রয়েছে ১৪৪ ধারা। প্রকাশ্যে তৃণমূল নেতাদের বিরুদ্ধে মহিলাদের ধর্ষণ, নির্যাতনের মত অভিযোগ উঠতেই আসরে নেমেছে বিরোধীরা। অভিযুক্তদের শাস্তি চেয়ে তৃণমূলের বিরুদ্ধে লাগাতার বিক্ষোভ দেখাচ্ছে সিপিএম, বিজেপি, কংগ্রেস। ওদিকে সবটাই রাম-বামের ষড়যন্ত্র বলে অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন খোদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূলের দাবি ছিল ধর্ষণের মত কোনও অভিযোগ নেই। আর এবার শিবু, উত্তমের বিরুদ্ধে গণধর্ষণের ধারা রাজ্য পুলিশের। ইতিমধ্যেই সন্দেশখালির মহিলা নির্যাতনের অভিযোগে সুপ্রিম কোর্টে দায়ের হয়েছে জনস্বার্থ মামলা।মহিলাদের কথা শুনতে সন্দেশখালি গিয়েছেন রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস, জাতীয় মহিলা সুরক্ষা কমিশন।

  • আগামী মাসেই নিউটাউনে নতুন ক্যাম্পাস, হবে বিপুল কর্মসংস্থান! বড় ঘোষণা ইনফোসিসের

    বাংলাহান্ট ডেস্ক : কলকাতা এবার বড়সড় পদক্ষেপ করতে চলেছে তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা ইনফোসিস। নতুন ক্যাম্পাস করার উদ্যোগ নিতে চলেছে বলে খবর। যদিও এর আগে ২০০৮ সালে এই পরিকল্পনা করেছিল সংস্থা কিন্তু তা বাস্তবায়িত হয়নি। এবার তারা বাংলায় নতুন প্রকল্পের কাজ শুরু করতে চায় বলে জানিয়েছে। সূত্র মারফত খবর, ২০২৪ সালের ১৬ মার্চ নিউটাউনে নতুন অফিস চালু করতে চাইছে ইনফোসিস। এই পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে কলকাতায় কর্মসংস্থানের দরজা খুলে যাবে। কারণ এখন নিউটাউনে যে ভাড়া বাড়ি নিয়ে অফিস চলছে সেখানে রয়েছে ৪০০ কর্মী। সেখানে এবার ৫০ একর জমির উপর নতুন অফিসে বাড়তি নিয়োগ করা যাবে বলে আশা করা হচ্ছে। আরোও পড়ুন : ফের ভয়ানক বিস্ফোরণ বাজি কারখানায়! প্রাণ হারালেন ১০জন, আহত বহু গত ৭ ফেব্রুয়ারি রাজ্যের তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় এবং ওই দফতরের দুই আধিকারিকের সঙ্গে বৈঠকে নতুন অফিস খোলার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়। অন্যদিকে ইনফোসিস সূত্রে খবর, নতুন অফিসে বাড়তি কর্মীর প্রয়োজন হবে। এর ফলে কার্যত বিপুল নিয়োগের সুযোগ তৈরি হবে। রাজ্যের শিক্ষিত–মেধাবী ছেলেমেয়েদের চাকরির জন্য দূরে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। আরোও পড়ুন : ‘বম্বে চলে কলকাতার জন্যই’, অরিজিতের কাছের মানুষের গান শুনে কেন একথা বললেন সৌরভ? ইচ্ছুক এবং যোগ্য প্রার্থীরা রাজ্যের মধ্যেই স্বপ্ন পূরণ করতে পারবেন।  ইনফোসিস সংস্থার আধিকারিকরা জানিয়েছেন, এখানে প্রায় ৩ হাজার ১০০ কর্মী নিয়োগ করতে চায় তারা। এই প্রকল্পে প্রায় ৬০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করতে চলেছে ইনফোসিস। ২০২১ সালে রাজ্যস্তরের পরিবেশ পর্ষদকে দেওয়া রিপোর্ট থেকে অন্তত এমনটাই জানা গিয়েছে। এই বিপুল বিনিয়োগ এবং কর্মসংস্থানের বিষয়টি সামনে আনেন রাজ্যের তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। জানা গিয়েছে, ইনফোসিসকে সেজ তকমা দিতে রাজি ছিলেন না মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যদিও জমি দিতে রাজি ছিলেন তিনি। তাই তথ্যপ্রযুক্তির সচিব দেবাশিস সেনকে বেঙ্গালুরুতে পাঠান মুখ্যমন্ত্রী। সেখানে বৈঠকের পরেই ইনফোসিসের সঙ্গে সমস্যা মিটে নতুন পথ খুলে যায়।

  • কালই হারিয়েছেন মন্ত্রিত্ব! গ্রেফতারির ১১৩ দিন পর এই প্রথম যা কাণ্ড ঘটালেন জ্যোতিপ্ৰিয়, শোরগোল

    বাংলা হান্ট ডেস্কঃ গত বছর পুজোর মাসে রেশন দুর্নীতি মামলায় গ্রেফতার হয়েছেন রাজ্যের প্রাক্তন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্ৰিয় মল্লিক। ইডির হাতে গ্রেফতার হওয়ার সময় তিনি ছিলেন রাজ্যের বনমন্ত্রী। যদিও শুক্রবার মন্ত্রিত্ব ঘুচেছে জ্যোতিপ্রিয়র (Jyotipriya Mallick)। গ্রেফতারির সাড়ে তিন মাস পর রাজ্যের বনমন্ত্রী এবং শিল্পোদ্যোগ মন্ত্রীর পদ থেকে সরানো হয় জেলবন্দি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে (Jyotipriya Mallick Expelled Form His Ministry)। আর তার একদিন পরই জামিন চেয়ে আদালতের দ্বারস্থ তৃণমূলের বালু। গ্রেফতার হওয়ার ১১৩ দিন পর এই প্রথম জামিনের আবেদন করলেন জ্যোতিপ্রিয়। শনিবার কলকাতার নগর দায়রা আদালতে জামিনের আর্জি জানান রেশন দুর্নীতিতে ধৃত জ্যোতিপ্ৰিয় মল্লিক। জামিনের আবেদন করে মূলত দুটি যুক্তি দিয়েছেন বালু। আদালতে প্রাক্তন মন্ত্রী জানিয়েছেন, তিনি শারীরিকভাবে অসুস্থ। তাই সেই প্রেক্ষিতে তাকে জামিন দেওয়া হোক। প্রসঙ্গত, গত ২৭ অক্টোবর টানা জিজ্ঞাসাবাদ ও তল্লাশির পর জ্যোতিপ্রিয়কে গ্রেফতার করেছিল ইডি। তার পর বেশ কিছুদিন ইডি হেফাজতে ছিলেন তিনি। তারপর হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ায় বেশ কিছু দিন হাসপাতালে কিছু দিন থাকতে হয় তাকে। আপাতত জেল হেফাজতেই রয়েছেন জ্যোতিপ্ৰিয়। উল্লেখ্য, গ্রেফতার হওয়ার পর থেকে এক বারের জন্যও জামিনের আবেদন করেননি বালু। এই প্রথম জামিনের আর্জি করেছেন তিনি। আগামী ২০ ফেব্রুয়ারি এই মামলার পরবর্তী শুনানির সম্ভাবনা। জ্যোতিপ্ৰিয় মল্লিকের বিরুদ্ধে রেশন দুর্নীতিতে সরাসরি যুক্ত থাকার অভিযোগ উঠেছে। ইডির দাবি ধৃত তৃণমূল নেতা শঙ্কর আঢ্যর যোগসাযোগে দুর্নীতির কালো টাকা সাদা করেছেন জ্যোতিপ্ৰিয়। ইডির দাবি বিদেশি মুদ্রায় কনভার্ট করানোর জন্য ধৃত শঙ্করের সংস্থাগুলিতে অন্তত ২০ হাজার কোটি টাকা জমা পড়েছে। যার মধ্যে ৯-১০ হাজার কোটি টাকা মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয়ের বলে আদালতে দাবি করে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। আরও পড়ুন: ডেপুটি সলিসিটর জেনারেল পদ থেকে অপসারিত বিল্বদল ভট্টাচার্য, আগে ছিলেন শুভেন্দুর আইনজীবী এদিকে গতকালই রাজ্যের বনমন্ত্রী এবং শিল্পোদ্যোগ মন্ত্রীর পদ থেকে সরানো হয়েছে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে। শুক্রবার রাজভবনের তরফে এক বিজ্ঞপ্তি জারি করে বলা হয়েছে, জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের বদলে এখন থেকে ওই দুই দফতরের দায়িত্বে থাকবেন বিরবাহা হাঁসদা এবং পার্থ ভৌমিক।

  • ডেপুটি সলিসিটর জেনারেল পদ থেকে অপসারিত বিল্বদল ভট্টাচার্য, আগে ছিলেন শুভেন্দুর আইনজীবী

    বাংলা হান্ট ডেস্কঃ কেন্দ্রের ডেপুটি সলিসিটর জেনারেলের পদ (Deputy solicitor general of India) থেকে অপসারিত সিবিআইয়ের আইনজীবী বিল্বদল ভট্টাচার্য (Bilwadal Bhattacharya)। তিনি কলকাতা হাই কোর্টে সিবিআই-র আইনজীবী ছিলেন। শুক্রবার এক নির্দেশিকা জারি করে কেন্দ্রীয় আইন মন্ত্রক জানিয়েছে, রাষ্ট্রপতির নির্দেশ মতো বিল্বদলকে কেন্দ্রের ডেপুটি সলিসিটর জেনারেলের পদ থেকে সরানো হয়েছে। কলকাতা হাই কোর্টে সিবিআইয়ের আইনজীবী বিল্বদল একাধিক গুরুত্বপূর্ণ মামলায় কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআইয়ের হয়ে সওয়াল করেন। প্রাথমিক, গ্রুপ সি, গ্রুপ ডি নিয়োগ দুর্নীতি সহ একাধিক মামলায় সিবিআই এর জমা দেওয়া রিপোর্ট আদালতে পেশ করেন বিল্বদল। কেন্দ্রের ডেপুটি সলিসিটর জেনারেলের পদে ছিলেন তিনি। সেই দায়িত্ব পাওয়ার আগে আগে রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর আইনজীবী হিসেবেও একাধিক মামলা লড়েছেন বিল্বদল। প্রসঙ্গত, এর আগে গত অক্টোবর মাসে সংবাদমাধ্যমের একাংশের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের অভিযোগ তুলে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রী রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায়। এতে গোপনীয়তার অধিকার খর্বের অভিযোগ জানিয়ে কলকাতা হাইকোর্টের কাছে রক্ষাকবচ চেয়েছিলেন অভিষেক পত্নী রুজিরা। সেই সময় সিবিআইয়ের আইনজীবী বিল্বদল ভট্টাচার্যই এর বিরোধীতা করে রুজিরা দেবীকে থাইল্যান্ডের নাগরিক বলে উল্লেখ করেছিলেন। সম্প্রতি সন্দেশখালিতে ইডির ওপর হামলার ঘটনায় সিবিআই এর আইনজীবী বিল্বদল ভট্টাচার্যকে উদ্দেশ্য করে বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের বলেছিলেন,’ দুজন ইডি অফিসার অফিসার আহত হয়েছেন। তোমরা কী করছ ? তোমাদের সঙ্গে গুলি-বন্দুক থাকে না ? চালাতে পার না ? দুজন অফিসারকে মেরেছে, তোমরা ২০০ জনকে পাঠাও।’ আরও পড়ুন: সন্দেশখালি নিয়ে তপ্ত আবহে রাজ্যে আসছেন মোদী-শাহ, সভা সেই উত্তর ২৪ পরগনাতেই কিছুমাস আগে নিয়োগ দুর্নীতিতে ধৃত তৃণমূলের নেতা কুন্তল ঘোষ চিঠি লিখে অভিযোগ তুলেছিলেন, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম বলার জন্য ইডি তার ওপর চাপ সৃষ্টি করছে। তার ওপর শারীরিক, মানসিক অত্যাচার করা হচ্ছে এই অভিযোগ তুলে আলিপুরের বিশেষ সিবিআই আদালত এবং হেস্টিংস থানায় চিঠি লেখেন কুন্তল। সেই চিঠির প্রেক্ষিতে সিবিআই তদন্তের দাবি তুলে সওয়াল করেছিলেন এই বিল্বদলই।

  • সাতসকালে পয়সা বৃষ্টি হাওড়ায়! মিলল অজস্র চকচকে কয়েন; জানুন, আসল ব্যাপারটা কী

    বাংলাহান্ট ডেস্ক: এ যেন টাকার ছড়াছড়ি! রাস্তায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে আছে অজস্র এক-দু’টাকার চকচকে নতুন কয়েন। আর সেই খুচরো পয়সা তুলতেই রীতিমতো ভিড় জমে গিয়েছে গোটা এলাকায়। অবাক লাগছে? নিশ্চয়ই ভাবছেন এমনটা আবার হয় নাকি? আপনার অবিশ্বাস্য মনে হলেও এই ঘটনা ঘটেছে খোদ হাওড়াতেই। তবে, কোথা থেকে অগণিত খুচরো এল সেই বিষয়ে অবশ্য চূড়ান্ত কিছু জানা যায়নি। তবে, হাওয়া সিটি পুলিশের তরফে অনুমান করা হচ্ছে যে, গতকাল ভোরের দিকে কলকাতাগামী একটি দূরপাল্লার বাসের ছাদ থেকে দু’টি বস্তা কোনওভাবে পড়ে যায় সাঁতরাগাছি উনসানি আন্ডারপাসের রাস্তায়। তার মধ্যে একটি বস্তা ফেটে গিয়ে অসংখ্য কয়েন রাস্তায় ছড়িয়ে পড়ে। আরোও পড়ুন : ‘বম্বে চলে কলকাতার জন্যই’, অরিজিতের কাছের মানুষের গান শুনে কেন একথা বললেন সৌরভ? রাস্তা থেকে টপাটপ কয়েন কুড়িয়ে যে যাঁর ঝুলিতে ভরছেন, এইরকম একটি দৃশ্য দেখে রাস্তায় দাঁড়িয়ে পড়েছিল একের পর এক গাড়ি। মুহূর্তের মধ্যে যানজট তৈরি হয়ে যায় গোটা এলাকায়। গাড়ির লম্বা লাইন ছড়িয়ে পড়ে কোনা এক্সপ্রেসওয়ের খেজুরতলা পর্যন্ত। খবর শুনে ছুটে আসেন কোনা ট্র্যাফিক গার্ডের কর্মীরা। আরোও পড়ুন : ফের নক্ষত্র পতন! প্রয়াত বিখ্যাত অভিনেত্রী অঞ্জনা ভৌমিক, দুঃখের পাহাড় ভেঙে পড়ল যিশুর পরিবারে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী, উনসানির বাসিন্দা মোর্শেদ আলম সর্দার বললেন, ‘‘নমাজ পড়ে ফেরার সময়ে আমরা অনেকেই ওই ঘটনা দেখতে পাই। কিন্তু কী ভাবে এত কয়েন রাস্তায় ছড়িয়ে পড়ল, তা বুঝতে পারিনি। পরে জান‌লাম, বাসের ছাদ থেকে পড়েছে।’’ পুলিশ জানায়, যে বাসের ছাদ থেকে ওই কয়েনের বস্তাগুলি পড়েছে, সেটি চিহ্নিত করার চেষ্টা হচ্ছে। হাওড়া সিটি পুলিশের এক কর্তা বলেন, ‘‘ঠিক কত টাকার কয়েন রয়েছে, তা গুনে দেখা হয়নি। বস্তাগুলি রেখে দেওয়া হয়েছে। কোনও দাবিদার এলে তাঁকে প্রমাণ করতে হবে যে, ওই কয়েনের বস্তা দু’টি তাঁরই। তবেই সেগুলি ফেরত দেওয়া হবে।’’ কিন্তু, বস্তাগুলো পড়ে যাওয়ার পরেও কেন বাস থামানো হলো না সেই বিষয়টি নিয়ে কিন্তু দ্বন্দ্ব বাড়ছে।

  • ‘বম্বে চলে কলকাতার জন্যই’, অরিজিতের কাছের মানুষের গান শুনে কেন একথা বললেন সৌরভ?

    বাংলাহান্ট ডেস্ক : দাদাগিরি মঞ্চে হাজির হন সাধারণ মানুষ থেকেই শুরু করে বিশিষ্ট ব্যক্তিরাও। আর সিজন ১০’এ শুরু থেকেই তারকা সমাবেশে জমজমাট এই মঞ্চ। প্রেমে দিবসের রেশের মাঝেই সুরের মূর্ছনায় এই মঞ্চ মুখরিত করছেন বলিউড ও টলিউডের নামীদামী সঙ্গীতশিল্পীরা। তালিকায় রয়েছেন বাবুল সুপ্রিয়, জয় সরকার, লোপামুদ্রা মিত্র, নিকিতা গান্ধী এবং অন্তরা মিত্র। ব্রহ্মাস্ত্র ছবিতেও অরিজিতের সঙ্গে ডুয়েট গেয়েছেন ইন্ডিয়ান আইডল ২ খ্যাত অন্তরা। সেই গানই এদিন গাইলেন শিল্পী। ‘কেশরিয়া তেরা ইশক হ্যায় পিয়া…’র সুরে ভাসলেন মসলন্দপুরের মেয়ে অন্তরা। আর সেই সুরের সাগরে ডুব দিলেন সৌরভও। উল্লেখ্য, প্রীতমের সুরেই রণবীর-আলিয়ার জন্য সুপারডুপার হিট গানে গলা মিলিয়েছিলেন অরিজিৎ-অন্তরা। সেই গান শুনে অভিভূত সৌরভ গাঙ্গুলি। তিনি বললেন, ‘দারুণ… বম্বে চলে কলকাতার জন্যই’। আরোও পড়ুন : ফের নক্ষত্র পতন! প্রয়াত বিখ্যাত অভিনেত্রী অঞ্জনা ভৌমিক, দুঃখের পাহাড় ভেঙে পড়ল যিশুর পরিবারে কিছুদিন আগে এক সাক্ষাৎকারে অরিজিৎ সম্পর্কে বলতে গিয়ে অন্তরা বলেন, ‘আমাদের দেশে খুব কম সংখ্যক মানুষই এত ভালোবাসা কুড়ান। আজকাল আর পাশাপাশি দাঁড়িয়ে গান রেকর্ড করার সুযোগ হয় না। একটা গানে কীভাবে গাইব সেই নিয়ে আলোচনা চলে না। অরিজিৎ জিয়াগঞ্জে থাকে এখন, আর আমি মুম্বইয়ে। তবে প্রীতমদার ব্রিফটা আমরা দুজনেই একইরকমভাবে বুঝি।’ আরোও পড়ুন : সুসংবাদ! সুর নরম RBI’র, এই দিন পর্যন্ত বাড়ল Paytm Payments Bank’র আয়ু তবে শুধু অন্তরাই নয়, সেই প্রোমোতে দেখা গেল তৃণমূল বিধায়ক তথা গায়ক বাবুল সুপ্রিয় তাঁর এভারগ্রিন গান ‘খোয়া খোয়া চান্দ’ গেয়ে যেন এক পরিবেশ এনে দিলেন।  তার গানে মুগ্ধ সকলেই। তাঁকে সঙ্গ দিলেন জয় সরকার। একই এপিসোডে জয়-লোপার খুনসুটি মন কাড়বে দর্শকের। প্রসঙ্গত, আগের ঝলকে দেখা গিয়েছে সহ-প্রতিযোগী বাবুল সুপ্রিয় কথা প্রসঙ্গে  বলে ওঠেন, ‘জয় ভাজা মাছ উলটে খেতে জানে?’     View this post on Instagram   A post shared by Zee Bangla Official (@zeebanglaofficial) এ কথা শুনেই তো রেগে আগুন  লোপামুদ্রা। রেগেমেগেই তাঁকে বলতে শোনা যায়, ‘জয় ভীষণ শান্ত, জয় ভীষণ ভালো মানুষ। আমার ইমেজটা খুব খারাপ’। তড়িঘড়ি বউয়ের মান ভাঙাতে চেষ্টার কোনও ত্রুটি রাখেনি জয়। বলেন, ‘আজ রাতে বাড়ি ফেরার পর যে কী অপেক্ষা করছে তা আমি জানি না’। তখন আবার সৌরভ ড্যামেজ কন্ট্রোলে বলে ওঠেন, ‘আর না না!’ তখন রাগ গলে জল লোপামুদ্রার। গোটা মঞ্চ হাসিতে ফেটে পড়ে।

24X7 Live News TV/Web Portal/Live App/Daily E News Paper Multinational & Multilingual Live News & Latest Updates, International to National News, Political to Social, Technical & business, Sports News, Local to Global impartial news coverage. Stay updated with us 24X7 Live News TV! Impartial, Intellectual, International, IOB News Network stay updated

24X7 লাইভ নিউজ টিভি/ওয়েব পোর্টাল/লাইভ অ্যাপ/ডেইলি ই নিউজ পেপার বহুজাতিক এবং বহুভাষিক লাইভ নিউজ এবং সর্বশেষ আপডেট, আন্তর্জাতিক থেকে জাতীয় সংবাদ, রাজনৈতিক থেকে সামাজিক, প্রযুক্তিগত ও ব্যবসায়িক, ক্রীড়া সংবাদ, স্থানীয় থেকে বিশ্বব্যাপী নিরপেক্ষ সংবাদ কভারেজ। আমাদের সাথে আপডেট থাকুন 24X7 লাইভ নিউজ টিভি! নিরপেক্ষ, বুদ্ধিজীবী, আন্তর্জাতিক, আইওবি নিউজ নেটওয়ার্ক আপডেট থাকুন